চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বায়তুল মোকাররমে হামলার শিকার চ্যানেল আইয়ের রিপোর্টার

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সফরকে কেন্দ্র করে রাজধানীর বায়তুল মোকাররম মসজিদ এলাকায় ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময় পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন চ্যানেল আইয়ের সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার শাকের আদনান।

শুক্রবার জুমার নামাজের পর এ সংঘর্ষের সময় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি আহত হন। তিনি রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে মোদি বিরোধী স্লোগান দিয়ে মিছিল ও বিক্ষোভ শুরু হলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে শুরু হয় সংঘর্ষ। এতে চ্যানেল আইয়ের রিপোর্টার শাকের আদনানসহ কমপক্ষে ৪০ জন আহত হয়েছেন।

আহত সাংবাদিক শাকের আদনান বলেন: নামাজ শেষে মসজিদ থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বের হওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এতেও কাজ না হলে কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে। এরপরই শুরু হয় সংঘর্ষ। এসময় অন্যান্য সংবাদকর্মীদের সাথে আমিও নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করি। সেখানে একটি পক্ষ আমাকে আশ্রয় দেয়ার চেষ্টা করলেও অন্য একটি পক্ষ এসে হামলা করে। এতে আমি মারত্মক আহত হই।

এছাড়া একই ঘটনায় ঢাকার বায়তুল মোকাররম মসজিদ এলাকা ছাড়াও চট্টগ্রামের হাটহাজারী এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এরমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভকারীরা রেলস্টেশনে হামলা, ব্যাপক ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে। এছাড়া তারা শহরের বিভিন্ন স্থানে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালও ভাঙচুর করেছে।

অন্যদিকে হেফাজতের নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে হাটহাজারী থানার দিকে এগুতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশ প্রথমে টিয়ারশেল ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে। একপর্যায়ে পুলিশ রাবার বুলেট ছোড়ে। প্রায় এক ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে উভয়পক্ষের মধ্যে এই সংঘর্ষ চলে। এ ঘটনায় একজন এএসপি আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

বিজ্ঞাপন