চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফ্যালকন নাইন ব্লক ফাইভে স্পেসএক্স প্রতিষ্ঠাতার পূর্ণ আস্থা

স্পেসএক্স প্রতিষ্ঠাতার জানা-অজানা

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বহনকারী ফ্যালকন নাইনের নবীনতম সংস্করণ ব্লক ফাইভ রকেটে ভরসা রাখছেন স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী এলন মাস্ক।

কিন্তু স্যাটেলাইটটির উৎক্ষেপণ গতকাল প্রত্যাশিত সময়ে করা যায়নি। কারণ, স্পেসএক্সের ফ্যালকন নাইন উৎক্ষপণের শেষ মিনিট নিয়ন্ত্রণকারী কম্পিউটার মাত্র ৪২ সেকেন্ড আগে তা স্থগিত করে। স্থগিত ঘোষণার পর স্পেসএক্স জানায়, ফ্যালন নাইন এবং বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ভালো অবস্থাতেই আছে।

বিজ্ঞাপন

উৎক্ষেপণের প্রথম নির্ধারিত সময়ের আগে সাংবাদিকদের কাছে ফ্যালকন নাইন ব্লক ফাইভের প্রতি নিজের পূর্ণ আস্থার কথা জানান এলন মাস্ক।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে প্রথম নির্ধারিত সময়ে উৎক্ষেপণের আগে ফ্যালকনের নবীন সংস্করণের প্রতি আস্থা রেখে তিনি বলেন: এ যাবৎ স্পেসএক্সের নির্মিত ফ্যালকন নাইন রকেটগুলোর মধ্যে ফ্যালকন নাইন ব্লক ফাইভ সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য।

‘‘আশা করি আমার এই ভরসার কথাগুলোর প্রতি ভাগ্য বিরূপ আচরণ করবে না। দ্বিধাহীনচিত্তে আমরাও সেটাই চাই। আমি মনে করি আমাদের একেবারে সংরক্ষণবাদী কাস্টমাররাও আমাদের এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত হবেন। আশা করি ভাগ্য বিড়ম্বনায় ফেলবে না, কারণ শুভ উদ্দেশ্যেই সব করা হচ্ছে।’’

বিজ্ঞাপন

কে এই এলন মাস্ক?
প্রযুক্তি জগতে বৈপ্লবিক ধারণা নিয়ে আসা ব্যক্তিদের তালিকায় বর্তমান সময়ে একটি জ্বলজ্বলে নাম এলন মাস্ক। টেসলা’র মতো অত্যাধুনিক গাড়ির নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সহ-প্রতিষ্ঠাতার নাম প্রযুক্তি বিশ্বের খবর রাখাদের জন্য একেবারেই নতুন নয়। সাম্প্রতিক সময়ে তিনি সবচেয়ে বেশি আলোচনায় আসেন ফেসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকাবার্গের ‘অপরিণামদর্শী’ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নির্ভরতার সমালোচনা করে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অপপ্রয়োগ থেকে মানবজাতির ক্ষতি মোকাবেলায় ‘নিরাপদ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা’ নিয়ে গবেষণা করছে তার প্রতিষ্ঠান। এমনকি প্রাণঘাতি রোবট প্রকল্পের বিরুদ্ধে সরাসরি জাতিসংঘকে খোলা চিঠি পাঠানোর ব্যক্তিদের একজন তিনি।

তবে সব ছাপিয়ে তার সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি স্পেসএক্সের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী। ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির অন্যতম স্বপ্নদ্রষ্টা এলন মাস্কের স্পেসএক্স ফ্যালকন নাইনের ব্লক ফাইভ রকেটে উৎক্ষেপণ করা হবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১।এলন মাস্কের জন্ম ১৯৭১ সালের ২৮ জুলাই সাউথ আফ্রিকায়। মাত্র ১২ বছর বয়সে কম্পিউটার প্রোগ্রামিংয়ে হাতেখড়ি হয় তার। বর্তমানে বয়সে বাংলাদেশের সমবয়সী এলন মাস্কের হাত ধরেই ২০০২ সালে যাত্রা শুরু করে স্পেসএক্স। এখন মহাকাশে বাণিজ্যিক মিশন পরিচালনা এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ফোর্বস ম্যাগাজিনের ২০১৮ সালের শীর্ষ ধনীর তালিকায় ৫৩তম স্থানে আছেন।

মঙ্গলে মানুষ নিতে চান মাস্ক
মঙ্গলগ্রহে মানুষের বসবাস উপযোগী স্বয়ংক্রিয় আবাসস্থল গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে এলন মাস্কের স্পেসএক্স।

এই স্বপ্ন বাস্তব করতে ২০০৮ সাল থেকেই সক্ষমতার জানান দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। সেবছরই প্রথম বেসরকারিভাবে নির্মিত এবং তরল জ্বালানিতে সক্ষম ফ্যালকন ওয়ান রকেটের সফল উৎক্ষেপণ ঘটায় স্পেসএক্স।

এই মাইলফলকের স্বীকৃতি হিসেবে নাসার কাছ থেকে মহাকাশে ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে (আইএসএস) কার্গো এবং মনুষ্যবাহী মহাকাশযান পাঠানোর অনুমোদন পায় এলন মাস্কের স্পেসএক্স।

এরপর ২০১০ সালের জুনে ফ্যালকন নাইন রকেট উৎক্ষেপণ শুরু করে স্পেসএক্স। শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত ৫০টিরও বেশি মিশন সম্পন্ন করেছে ফ্যালকন নাইন।