চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফিফার ‘বদলি বাড়ানোর’ নিয়মে অখুশি কনমেবল

ক্লাব ফুটবলে ‘বদলি বাড়ানোর’ নতুন নিয়মের অনুমোদন পেয়েছে ফিফা। শুক্রবার ম্যাচে বদলি খেলোয়াড় তিন থেকে বাড়িয়ে পাঁচজন করার সিদ্ধান্ত জানিয়ে বিশ্ব ফুটবলের অভিভাবক সংস্থাটি সাধুবাদের পাশাপাশি পড়েছে আপত্তির মুখেও।

ইউরোপে ফিফার সিদ্ধান্ত গ্রহণযোগ্যতা পেলেও অখুশি হয়েছে সাউথ আমেরিকান ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা কনমেবল। সংস্থাটির প্রধান আলেহান্দ্রো ডমিনগেস টুইটার প্রতিক্রিয়ায় লিখেছেন, ‘এটা অবাক করার মতো। আমাদের কোনো মতামত নেয়া হয়নি।’

বিজ্ঞাপন

যদিও শুধুমাত্র চলতি মৌসুমেই, অর্থাৎ ২০১৯-২০ মৌসুমের ক্ষেত্রেই আপাতত নতুন নিয়মটি প্রযোজ্য। মেসি-রামোসদের বার্সেলোনা-রিয়াল মাদ্রিদের স্প্যানিশ লা লিগা দ্রুতই নতুন নিয়মে খেলোয়াড় পরিবর্তনের পক্ষে সায় দিয়েছে। ইউরোপের অন্য লিগগুলোও হাঁটছে একই পথে।

বিজ্ঞাপন

করোনার পরে ফুটবল মৌসুম আবারও যখন মাঠে গড়াবে, ক্লাব-দেশগুলোকে পড়তে হবে ব্যস্ত সূচিতে। তাতে খেলোয়াড়দের উপর চাপ-চোট দুটিরই প্রভাব বাড়তে পারে। সেটা কমাতে ফিফার এই তিনের পরিবর্তে পাঁচ বদলির সিদ্ধান্ত।

বিজ্ঞাপন

সঙ্কটের সময়ে পাঁচজন ফুটবলার বদলি নামানোর প্রস্তাব ফিফা আগেই দিয়েছিল। তাতেই কেবল কার্যকরের জন্য সায় দিয়েছে আন্তর্জাতিক ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন বোর্ড (আইএফএবি)। যে বোর্ডের কাজই ফুটবলের আইন প্রণয়ন করা।

বদলি খেলোয়াড়ের নিয়ম পরিবর্তনে মহামারী করোনাভাইরাসের ভূমিকা বেশ স্পষ্ট। করোনা পরবর্তী বিশ্বে অনেককিছুই আগের মতো থাকবে না। থমকে থাকা খেলাধুলার জগতে কতটা পরিবর্তন আসবে তা সময়ই বলবে। আপাতত যাত্রা শুরু হল ফিফার পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে।

ক্লাবপর্যায়ের সব ফুটবল ম্যাচে নতুন নিয়ম কার্যকর থাকবে। যেসব প্রতিযোগিতা চলতি বছরের মধ্যে শেষ করতে হবে, আপাতত সেসব ম্যাচের জন্য ফিফার প্রস্তাবে সাময়িক এই পরিবর্তনের পক্ষে সম্মত আইএফএবি। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের সুযোগ থাকছে লিগগুলোর আয়োজক কমিটির কোর্টেই।

ম্যাচে পাঁচ বদলির জন্য অবশ্য ধরাবাঁধা শর্ত থাকছে। পাঁচ বদলি করতে হবে তিনবারেই। মানে পাঁচবার খেলা থামানোর সুযোগ পাবে না কোনো দলই। তিনবার খেলোয়াড় বদল করার সময়েই একাধিক খেলোয়াড় বদলে পাঁচের কোটা পূরণ করতে হবে। সঙ্গে মৌসুম ফের মাঠে গড়ালে ভিএআর সিস্টেম চাইলে বন্ধ রাখতে পারবে লিগ কমিটি, এটাও ফিফার নতুন আপাত নিয়ম।