চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আর্থিক দুরবস্থা

রাজনৈতিক বিবেচনায় দেশের বিভিন্ন উপজেলা সদরকে পৌরসভা করার অভিযোগ অনেক পুরনো। নতুন খবর হলো- দেশের পৌরসভাগুলোতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রায় ৮৫ শতাংশের বেতন ভাতা হচ্ছে না দীর্ঘদিন। এ কারণে অনেক পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছে।

বিজ্ঞাপন

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানা যায়, দেশের মোট ৩২৭টি পৌরসভার মধ্যে মাত্র ৪৯টি পৌরসভায় বেতন-ভাতা নিয়মিত হচ্ছে। বাকি ৮৫ শতাংশ পৌরসভাই কর্মকর্তা–কর্মচারীদের বেতন দিতে না পারছে না।

এই তথ্য এসব পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংগঠন পৌরসভা সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের। তারা জানায়, নিজস্ব আয় না থাকায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়মিত বেতন-ভাতা দিতে পারছে না দেশের বেশির ভাগ পৌরসভা। সর্বনিম্ন ২ থেকে সর্বোচ্চ ৬৫ মাস পর্যন্ত বেতন-ভাতা বকেয়া পড়েছে ২৭৮টি পৌরসভার। এই অবস্থায় পরিবার নিয়ে চরম সংকটে পড়েছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। সবচেয়ে খারাপ অবস্থায় আছেন বগুড়ার সান্তাহার পৌরসভার কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। ৬৫ মাস ধরে তাদের বেতন অনিয়মিত।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গ্রামীণ অনেক এলাকাকে পৌরসভা ঘোষণা করা হয়েছে। এসব পৌরসভার নিজস্ব আয়ের কোনো উৎস নেই। রাজনৈতিক বিবেচনায় হওয়া এসব পৌরসভায় নাগরিক সুবিধা বলেও কিছু নেই। আমরা বিশেষজ্ঞদের এ কথার সঙ্গে একমত পোষণ করছি। একইসঙ্গে বিষয়টি সমাধানের জন্যও সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে আহ্বান জানাচ্ছি।

আমরা মনে করি, পৌরসভাগুলোতে আয়ের উৎস না থাকলে সেটার সমাধান করেই চালাতে হবে। শুধুমাত্র রাজনৈতিক কারণে পৌরসভায় উন্নীত করে জনগনকে ন্যূনতম সেবাও দিতে না পারা এবং কর্মরতদের বেতন দিতে না পারা স্থানীয় সরকার প্রশাসনের জন্য কোনো সুখবর নয়। অন্তত কর্মরত মানুষদের পরিবারগুলোর আর্থিক দুরবস্থা দূর করতে সরকারকে এখনই উদ্যোগ নিতে হবে। প্রয়োজনে আইন সংশোধন করতে হবে। বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে ভুক্তভোগীদের সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী হতে আমরা সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানাচ্ছি।

Bellow Post-Green View