চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করা ১০ ফুটবলারের গল্প

পিতার দেখানো পথকে ভালোবাসায় পরিণত করে অনেক সন্তানই আলো কেড়েছেন। বাবার কীর্তি নিজের মধ্যে ধারণ করে কেউ কেউ ছাপিয়ে গেছেন পূর্বপুরুষকেও। জেনে নেয়া যাক তেমন ১০ ফুটবলারের গল্প। যারা বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করে গায়ে জড়িয়েছেন একই ক্লাবের জার্সি, ছড়িয়েছেন উজ্জ্বলতা।

শুরুতেই বলা যাক নরওয়ে তারকা আর্লিং হালান্ডের গল্প। বরুশিয়া ডর্টমুন্ড থেকে হালান্ডকে দলে টানতে কাড়িকাড়ি অর্থের পসরা সাজিয়ে বসেছিল জায়ান্ট ক্লাবগুলো। আমলে নেননি হালান্ড।

Reneta June

শৈশবে বাবা আলফে-ইনগে হালান্ডকে ম্যানচেস্টার সিটিতে (২০০০-২০০৩) খেলতে দেখেছেন, সেই পথ ধরে সিটির জার্সি গায়ে জড়ানোর স্বপ্ন পূরণ করতে চলেছেন। চুক্তি হয়ে গেছে। লোভনীয় সব প্রস্তাব একপাশে রেখে ম্যানসিটিতেই ঠিকানা খুঁজে নিয়েছেন হালান্ড।

বিজ্ঞাপন

ফরাসি কিংবদন্তি জিনেদিন জিদান রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে খেলেছেন ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত। পরে ক্লাবটির কোচের ভূমিকায়ও আলো ছড়িয়েছেন। তার অধীনেই পুত্র এনজো জিদান কিছু সময় মাঠে নেমেছেন রিয়ালের জার্সিতে।

ডাচ ফুটবলার ইয়োহান ক্রুইফ বার্সেলোনার হয়ে ১৯৭৩-১৯৭৮ সাল পর্যন্ত মাঠ মাতিয়েছেন। পরে ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৬ সময়টা ন্যু ক্যাম্প মাতিয়েছেন তার ছেলে জর্ডি ক্রুইফ।

ইতালিয়ান কিংবদন্তি সেসার মালদিনি একযুগ এসি মিলানকে সার্ভিস দেয়ার পর ছেলে পাওলো মালদিনি খেলেছেন দুই যুগ। পরে তার নাতি ড্যানিয়েল মালদিনি ২০২০ সালে যোগ দিয়ে এখনো খেলে চলেছেন মিলান জার্সিতে।

আয়াক্স তারকা ড্যানি ব্লিন্ডের পর তার ছেলে ডেলে ব্লিন্ড ২০০৮ সালে যোগ দিয়ে এখনো খেলে চলেছেন ডাচ ক্লাবটিতে।

আয়াক্সের আরেক তারকা প্যাট্রিক ক্লুইভার্টের পদাঙ্ক পরে অনুসরণ করেছেন ছেলে জাস্টিন ক্লুইভার্টও।

বাবা কার্লোস বুসকেটসের পর পুত্র সার্জিও বুসকেটস ২০০৮ সালে বার্সায় যোগ দিয়ে দীর্ঘ সময় কাটিয়ে ফেললেও এখনো বার্সার মায়া কাটাতে পারেননি।

ডিয়েগো সিমিওনের পর পুত্র গুইলিয়ানো সিমিওনে এ মৌসুমেই যোগ দিয়েছেন বাবার ক্লাব অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে।

ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি রিভাল্ডো তো পুত্র রিভালদিনহোর সাথেই মাঠে নেমে ইতিহাস গড়েছেন। দুজনে ২০১৪-১৫ মৌসুমে মগি মিরমির হয়ে মাঠে নেমেছেন।

রিয়াল সোসিয়েদাদের হয়ে পিতা মিগুয়েল পেরিকো আলনসোর পর দুই পুত্র মিকেল ও জাভি আলনসো খেলেছেন একই ক্লাবে।