চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পানিতে কেন অ্যাসিড-অ্যামোনিয়া-ব্যাকটেরিয়া: ওয়াসার বক্তব্য চাইলেন হাইকোর্ট

পানিতে উচ্চমাত্রার অ্যামোনিয়া, ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়া ও ক্ষতিকর হ্যালোজেনিক অ্যাসিডের উপস্থিতির বিষয়ে ঢাকা ওয়াসার বক্তব্য দুই সপ্তাহের মধ্যে হলফনামা আকারে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

রোববার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই নির্দেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

এই নির্দেশ দেওয়ার আগে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এবং আইসিডিডিআরবির প্রতিনিধির সমন্বয়ে গঠিত কমিটির করা পানি পরীক্ষার ফলাফল প্রতিবেদন হাইকোর্টে উপস্থাপন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মিজানুর রহমান।

হাইকোর্টে উপস্থাপন করা পানি পরীক্ষার ফলাফল প্রতিবেদনে বলা হয়ে, ঢাকা ওয়াসার ১০টি মডস জোনের মধ্যে ৪টি (১,২,৪,৭) মডস জোনে এবং সায়েদাবাদ ও চাঁদনীঘাট এলাকা থেকে সংগৃহীত পানির ৮টি নমুনায় ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়া, উচ্চমাত্রার অ্যামোনিয়া, ট্রাই-ক্লোরামাইনস ও ডাই-ক্লোরামাইন, হ্যালোজেনিক অ্যাসিটিক অ্যাসিডসহ মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর উপাদান পাওয়া গেছে।

আদালত এ সময় ওয়াসার আইনজীবী এম মাসুদের কাছে এ বিষয়ে তাদের বক্তব্য জানতে চান। তখন ওয়াসার আইনজীবী বলেন: আমরা পানি পরীক্ষার ফলাফল প্রতিবেদন পাইনি। তাই আমাদের প্রতিবেদনটি আগে দেখতে হবে এবং এ বিষয়ে জবাব দিতে ২ সপ্তাহ সময় লাগবে।

এরপর আদালত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে পানি পরীক্ষার ফলাফল প্রতিবেদনের কপি ওয়াসাকে দিতে বলেন। আর পানি পরীক্ষার ফলাফলের বিষয়ে ওয়াসাকে তাদের বক্তব্য দুই সপ্তাহের মধ্যে হলফনামা আকারে আদালতে দাখিলের নির্দেশ দেন। এবিষয়ে পরবর্তী আদেশের জন্য ২৪ জুলাই দিন ধার্য করেন হাইকোর্ট। আজ আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী তানভীর আহমেদ।

বাংলাদেশের পানি সরবরাহ, পয়োনিষ্কাশন, স্বাস্থ্যবিধি ও দরিদ্রতা নিয়ে এর আগে বিশ্বব্যাংক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। বাংলাদেশ নিয়ে তৈরি করা সে প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘দেশের প্রায় সাড়ে সাত কোটি মানুষ অপরিচ্ছন্ন এবং অনিরাপদ উৎসের পানি পান করছে। পানির নিরাপদ উৎসগুলোর ৪১ শতাংশই ক্ষতিকারক ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়াযুক্ত এবং ১৩ শতাংশে রয়েছে আর্সেনিক।

বিজ্ঞাপন

বিশ্বব্যাংকের সে প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, পাইপলাইনের পানির ৮২ শতাংশেই রয়েছে ই-কোলাই। ৩৮ শতাংশ টিউবওয়েলের পানিতে পাওয়া গেছে এই ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া। পাকস্থলি ও অন্ত্রের প্রদাহের জন্য ই-কোলাই ব্যাকটেরিয়াকে দায়ি করা হয়।’

ওই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ‘নিম্নমানের পানি এবং পয়ঃনিষ্কাশন–ব্যবস্থা দেশের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে। এ দুটি বিষয় শিশুর পুষ্টির সঙ্গে সম্পৃক্ত। বাংলাদেশের প্রায় ৩৫ শতাংশ শিশু বয়সের তুলনায় উচ্চতায় কম। নিরাপদ ও মানসম্মত পানি এবং পয়োনিষ্কাশন–ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হলে শিশুদের বেড়ে ওঠা এবং দেশের উন্নতি ত্বরান্বিত হবে। দেশের পানি সরবরাহ, পয়ঃব্যবস্থাপনা–সংক্রান্ত ব্যবস্থার উন্নয়নে জাতীয় বাজেটে বরাদ্দ চাহিদার তুলনায় কম। গত এক দশকে এই খাতে বাজেটে বরাদ্দ প্রায় অর্ধেক কমেছে।’

বিশ্বব্যাংকের এই প্রতিবেদন তথ্য নিয়ে প্রকাশিত খবর যুক্ত করে গত বছরের ১৪ অক্টোবর হাইকোর্টে একটি রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তানভীর আহমেদ। সে রিটের শুনানি নিয়ে গত ৬ নভেম্বর হাইকোর্ট ওয়াসার পানি পরীক্ষার জন্য চার সদস্যের একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন।

এরপর স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিবকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যের কমিটি গঠন করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ডায়রিয়াল ডিজিজ রিসার্চ, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী মনিরুল আলম, বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক এ বি এম বদরুজ্জামান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান সাবিতা রিজওয়ানা রহমানকে সদস্য হিসেবে নেওয়া হয় কমিটিতে।

পরে এই কমিটির দেওয়া এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘নমুনা সংগ্রহ করে তার নির্দিষ্ট পরীক্ষার পর বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদন তৈরি করতে একটি তহবিলের পাশাপাশি ল্যাবরেটরিসহ ঢাকা ওয়াসার সামগ্রিক প্রচেষ্টা দরকার।’

পরবর্তীতে হাইকোর্টের আদেশে মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি আদালতে প্রতিবেদন দিয়ে বলে, গত তিন মাসে গ্রাহকের অভিযোগের তালিকা বিশ্লেষণ করে দেখা যায় ওয়াসার ১০টি জোনের ৫৯ এলাকায় ময়লা পানির প্রবণতা বেশি। ওই প্রতিবেদন আরও বলা হয় ওয়াসার ১০টি জোনের প্রত্যেক এলাকা থেকে ৩৫৫টি নমুনা সংগ্রহ করা হবে। যাতে মোট নমুনার সংখ্যা দাঁড়াবে ১০৬৫টি। এই ১০৬৫ টি নমুনা করে তিনটি ল্যাবরেটরিতে রোগজীবাণু ও ভোৗত রাসায়নিক সংক্রান্ত পরীক্ষা করতে খরচ হবে ৭৫ লাখ ৬১ হাজার ৫০০ টাকা।

তবে আরো কম নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার খরচটা কমানো যায় কিনা সেজন্য এক্সপার্টের মতামত দরকার মনে করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সাবিতা রিজওয়ানা রহমানকে ২১ মে আদালতে আসতে বলেন হাইকোর্ট। এরপর অধ্যাপক সাবিতা রিজওয়ানা রহমান ২১ মে হাইকোর্টে এসে তার মতামত উপস্থাপনকরে বলেন, ‘আমাদের ওয়াসার পানি মোট চারটি উৎস থেকে আসে, এগুলো হলো; ভূমিস্থ, ভূগর্ভস্থ এবং শীতলক্ষ্যা ও বুড়িগঙ্গা। তাই এই চারটি সোর্সের পানি এবং এই সোর্স থেকে আসা ১০টি জোনের পানি এবং এই জোনগুলো থেকে যাওয়া ১০টি র‌্যান্ডম এলাকার আর গ্রাহকের অভিযোগের ভিত্তিতে দেওয়া ১০টি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার পানির স্যাম্পল নিয়ে পরীক্ষা করা যেতে পারে। এরপর হাইকোর্ট ঢাকা ওয়াসার উপরোক্ত ৩৪টি পয়েন্টের পানি পরীক্ষা করে ২ জুলাইয়ের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেন। এবং এই ৩৪টি পয়েন্টের পানির প্রতিটি স্যাম্পল পরীক্ষায় পাঁচ হাজার টাকা করে মোট ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা দিতে ওয়াসার প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়। এ নির্দেশনার পর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এবং আইসিডিডিআরবির প্রতিনিধির সমন্বয়েগঠিত কমিটি ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষা করে হাইকোর্টে প্রতিবেদন জমা দেন।

Bellow Post-Green View