চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পল্লবী আর নুহাশ পল্লীতে হবে ‘হুমায়ূন আহমেদ স্মৃতি জাদুঘর’

‘ঢাকার পল্লবীতে হুমায়ূন আহমেদের যে দোতলা বাড়ি রয়েছে, সেটি স্মৃতি জাদুঘর করা হবে।’ বললেন হুমায়ূন আহমেদের ছোট বোন সুফিয়া হায়দার। আর তার স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন বললেন, ‘নুহাশ পল্লী হ‌ুমায়ূন আহমেদের সবচেয়ে প্রিয় স্থান। তিনি সবুজকে যেভাবে ভালবাসতেন, সেভাবেই নুহাশ সাজানো গোছানো রয়েছে আজও। সবুজ বৃক্ষের ছায়ায় তিনি শুয়ে আছেন। এখানেই গড়ে তোলা হবে হুমায়ূন জাদুঘর।’ আজ বুধবার গাজীপুরের নন্দন কানন নুহাশ পল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তারা। এরপর বিভিন্ন প্রিন্ট, অনলাইন ও টিভি মিডিয়ার সাংবাদিকদের কাছে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

আজ জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ও নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের প্রয়াণ দিবস। এ উপলক্ষে লেখকের স্মৃতিবিজড়িত নুহাশ পল্লীতে ভক্তদের ঢল নেমেছে।

বিজ্ঞাপন

বেলা ১১টায় নুহাশ পল্লীতে লেখকের সমাধিতে প্রথমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দুই ছেলে নিষাদ ও নিনিত। আরও ছিলেন স্বজন ও ভক্তরা।

নুহাশ পল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের সমাধির পাশে ভক্ত ও স্বজনেরা
নুহাশ পল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের সমাধির পাশে ভক্ত ও স্বজনেরা

মেহের আফরোজ শাওন বলেন, ‘নুহাশ পল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের ক্যানসার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করার যে স্বপ্ন ছিল, তা আমার একার পক্ষে বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। এ দেশের গুণীজন, নীতিনির্ধারক যারা রয়েছেন, হুমায়ূন আহমেদের পাঠক, ভক্ত শুভাকাঙ্ক্ষী, দর্শক যারা রয়েছেন, এজন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। তার এই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য আমি সবাইকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করছি।’

এদিকে গাজীপুরের হিমু পরিবহনের প্রধান সমন্বয়কারী নাসরিন সুলতানা বেবী বলেন, ‘হুমায়ূন আহমেদ স্যারের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকার সামাজিক প্রতিষ্ঠানে ৫শ বনজ, ফলজ ও ঔষুধি গাছের চারা রোপণ করা হচ্ছে। ক্যানসার সচেতনতায় দেশব্যাপী লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে।’