চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘নামে যায় না চেনা’

অ্যাগনেস গনজিয়া বোয়াজিয়ু,ইনকিলাব শ্রীবাস্তব,অরুণ কুমার চ্যাটার্জি, আভাস কুমার গাঙ্গুলি, রমা সেন গুপ্ত, প্রবোধ চন্দ্র দে.কামরুদ্দিন খান,গৌরাঙ্গ চক্রবর্তী, কেদার নাথ ভট্টাচার্য, ইদ্রিস আলি,মিনা পাল,আফরোজা সুলতানা কিংবা মাসুদ রানা। সচেতন পাঠক,কৌতুহলী সংস্কৃতিবোদ্ধাদের কাছেও নামগুলো খুব পরিচিত নয়। একগুচ্ছ নামের মানুষগুলো নিজেদের কীর্তি আর সাফল্য দিয়ে উঠেছেন খ্যাতির এভারেস্টে। ঔজ্জল্যে তারা হার মানিয়েছেন আকাশের নক্ষত্র’কে। জন্মেছিলেন পারিবারিক এই নাম নিয়ে। নানা কারণে সেই নাম অন্দরমহলে রেখে পোশাকি নাম নিয়ে জীবনসংগ্রামে নেমে পেয়েছেন তুঙ্গস্পর্শী সাফল্য। খ্যাতি আর সাফল্যের স্রোতে ভেসে গেছে পারিবারিক নাম। ভক্তদের মুখে মুখে ফিরছে পোশাকি নাম।

বলিউড মেগাস্টার অমিতাভ বচ্চনের গল্পটা একটু ভিন্ন। ভারতের এলাহাবাদের উচ্চবর্ণের এক হিন্দু পরিবারে ১৯৪২ সালে জন্ম অমিতাভের। বাবা হিন্দি সহিত্যের নামাজাদা কবি হরিবংশরাই শ্রীবাস্তব। ব্রিটিশ বিরোধী ‘ভারত ছাড়’ আন্দোলনের উত্তাল সময়ে জন্ম বলে হরিবংশরাই বড় ছেলের নাম রাখলেন ইনকিলাব (বাংলায় স্বাধীনতা)। ভারতে অচ্ছুৎ দলিথ ও নিন্মশ্রেণির হিন্দুদের প্রতি উচ্চ শ্রেণির অত্যাচার,অবহেলার প্রতিবাদ ও অত্যাচারিতের প্রতি সংহতি জানাতে বংশগত উপাধি শ্রীবাস্তব ত্যাগ করে সপরিবারে বচ্চন পদবী গ্রহণ করলেন হরিবংশরাই। সেভাবেই হরিবংশরাই হলেন বচ্চন। একসময় ইনকিলাব ও শ্রীব্স্তব দুটোই নাম ঝেড়ে ফেলে ‘বিগ-বি’ দুনিয়া কাঁপালেন অমিতাভ বচ্চন হয়ে। ঝাঁ-চকচকে ক্যারিয়ারে বলিউড আইকন ‘ইনকিলাব’ নামে বক্স অফিসে ঝড় তোলা এক ছবিতে অভিনয়ও করেছিলেন।

বিজ্ঞাপন

অটোমান সম্রাজ্যের মেসিডোনিয়ায় জন্ম নেয়া অ্যাগনেস গনজিয়া বোজাজিয়ু রোমান ক্যাথলিক ধর্মে দীক্ষা নিয়ে হয়ে যান মেরি টেরেসা বোজাজিয়ু। ভারতে ধর্মপ্রচারে এসে অসহায় মানুষের সেবায় ১৯৫০ সালে গড়ে তোলেন ‘মিশনারিজ অফ চ্যারিটি’। অসহায় গরীবের আপনজন সিস্টার টেরিসা থেকে মাদার টেরিসা,এভাবেই শান্তিতে নোবেল জয়ী মহিয়সী হয়ে ওঠেন বিশ্ব জননীর প্রতীক। এই উপমহাদেশে অনেক সফল আর বিখ্যাত ব্যাক্তিত্বের পারিবারিক নাম চাপা পড়েছে পোশাকি নাম আর কীর্তির ঔজ্জল্যে। বাদশাহ আকবরের রাজদরবারের ‘নবরত্নের অন্যতম উচ্চাঙ্গ বা শাস্ত্রীয় সংগীতের ধারার জনক মিয়া তানসেননের পোশাকি নামের আড়ালে হারিয়ে গেছে গোয়ালিয়রের এক সংগীত পরিবারে জন্ম নেয়া তনু মিস্ত্র বা রামতনু পান্ডে নামটি। সানাই বাদনে প্রবাদ পুরুষ ওস্তাদ বিসমিল্লাহ খানের খ্যাতির আড়ালে চাপা পড়েছে কামরুদ্দিন খান।

বিজ্ঞাপন

পরের ভাই আভাষ কুমার গাঙ্গুলি বা ভক্তদের প্রিয় কিশোরকুমার অভিনয়ের পাশপাশি সুরের মুর্চ্ছনায় জয় করেন কোটি ভক্তের হৃদয়। প্রবাদপ্রতীম সংগীতশিল্পি প্রবোধ চন্দ্র দে ডাক নাম মান্নার সঙ্গে পারিবারিক পদবী দে যোগ করে হারমোনিয়ামের রিডে হাত রাখেন। কলকাতার এক মধ্যবিত্ত ঘরের সন্তান কেদারনাথ ভট্টাচার্য সংগীত জগত মাত করেছেন কুমার শানু নামে। বাংলাদেশের বরিশাল থেকে পশ্চিম বাংলায় অভিবাসন গৌরাঙ্গ চক্রবর্তীর পূর্বপূরুষদের। শৈশব কৈশোরের দুরন্তপনা আর সমাজবদলের রাজনীতি শেষে পুনে ফিল্ম ইনস্টিটিউট থেকে অভিনয়ে উচ্চশিক্ষা নিয়ে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু গৌরাঙ্গ’র। মৃনাল সেনের আবিস্কার এই অভিনেতা ক্যারিয়ারের প্রথম চলচিত্র ‘মৃগয়ার’ জন্য পান ভারতের জাতীয় চলচিত্র পুরস্কার। তুমুল সংগ্রামের পর সেই গৌরাঙ্গ ‘মিঠুন চক্রবর্তী’ হয়ে জয় করে বালিউড ‘সিনে-জগত’। বাংলা চলচিত্রের কিংবদন্তী উত্তম কুমারের পারিবারিক নাম অরুন কুমার চ্যাটার্জি,তার ছোটভাই তরুণ কুমারও নামী অভিনেতা। প্রবাদপ্রতীম উত্তম-সূচিত্রা জুটির নায়িকা সূচিত্রা সেন’রও পারিবারিক নাম রমা দাস গুপ্ত।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের পাবনার মেয়ে রমা দাস গুপ্ত স্বামীর উপাধি নিয়ে হয়েছিলেন রমা সেন। এরপর চলচিত্র জগতে পা রাখলেন ‘সুচিত্রা সেন’ নামে,তাতেই বাজীমাৎ।বলিউডে টানা ১৭ সুপারহিট ছবি’তে নায়ক, ভারতীয় সিনেমার প্রথম সুপারস্টার রাজেশ খান্নার পারিবারিক নাম যতীন খান্না,কাছের মানুষরা আদর করে কাকা নামে ডাকতেন । সম্পুরান সিং কালরা গীতিকার,চিত্রনাট্যকার হিসাবে বলিউড জয় করেন ‘গুলজার’ নামে।

একই পথ ধরে লাহোরের ইউসুফ খান হয়েছেন দিলীপ কুমার ধরম সিং দেওল হয়েছেন ধর্মেন্দ্র, রবি কাপুর জিতেন্দ্র,গুজরাটের হরিহর জেতালাল জরিওয়ালা সঞ্জীব কুমার রাজিব হরিওম ভাটিয়া অক্ষয় কুমার,বিশালবীরু দেবগন বিখ্যাত অজয় দেবগন নামে। বলিউড কাঁপানো দক্ষিণ ভারতের ড্যাশিং হিরো রজনীকান্’র পরিবারিক নাম শিবাজি রাও গায়কোয়াড়। দক্ষিণ ভারত বলিউড’কে যুগে যুগে উপহার দিয়েছে একদল অসাধারণ সুন্দরী নায়িকা। বিখ্যাত অভিনেতা শিবাজি গনেশনের কন্যা ভানুরেখা গনেশন কোটি পুরুষের হৃদয় জয় করা অভিনেত্রী রেখা, শ্রী আম্মা যানগার আয়াপ্পানের পোশাকি নাম শ্রীদেবী,আশ্বিনী শেঠি হয়েছেন শিল্পা শেঠি,ক্যাটরিনা টেরাকুট্টে’র তারকাদূত্যি ছড়িয়েছেন ক্যাটরিনা কাইফ নামে। পার্সি ধর্মের অনুসারি ফারহানই ফিল্মি দুনিয়ায় বিখ্যাত মাচো বয় জন আব্রাহাম। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র জগতে পোশাকি নামের জৌলুষে হারিয়ে গেছে অনেক সফর তারকার পারিবারিক নাম।

পরিচালক সুভাষ দত্তের হাত ধরে ঢাকার চলচ্চিত্র জগতে পা রাখা তরুণ ইদ্রিস আলিই প্রতিভা আর যোগ্যতা দিয়ে হয়ে যান নামী অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন। অভিনয় জগত ছাপিয়ে নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন দিয়ে দেশের মানুষের মন জয় করেছেন তিনি। ব্যাংকার তবারুখ আহমেদ বিখ্যাত হয়েছেন বুলবুল আহমেদ নামে। শরীরচর্চায় একসময় ‘মিস্টার ইস্ট পাকিস্তান’ খেতাব পাওয়া মেজবাহউদ্দিন আহমেদই সত্তর দশকের জনপ্রিয় নায়ক ওয়াসিম। ঢাক্রা অবাঙ্গালি পরিবারে জন্ম নেয়া গায়ক নাজির বেগ পাকিস্তানের সিনেমা জগত জয় করেছেন নাদিম নাম নিয়ে। একককালে পাকিস্তানের বিখ্যাত নায়িকা শবনমের পারিবারিক নাম ঝর্না বসাক,কবরীর মিনা পাল,দর্শকদের মনজয় করা নায়িকা শাবানার আসল নাম আফরোজা সুলতানা রত্না। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পরিচিত করা সত্যাজিত রায়ের ’অশনি সংকেত’র’ অনঙ্গ বউ ববিতার পারিবারিক নাম ফরিদা আখতার পপি। পূর্নিমার পোশাকি নামের আড়ালে হারিয়ে গেছে দিলারা হানিফ রীতা।

ঢাকার চলচ্চিত্র জগতের দুই সুপারস্টার অভিনেতা মান্নার পারিবারিক নাম আসলাম তালুকদার। এ সময়ের ক্রেজ শাকিব খানকে তার ঘনিষ্ঠজনরা চেনেন মাসুদ রানা নামে ।

(এ বিভাগে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। চ্যানেল আই অনলাইন এবং চ্যানেল আই-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে প্রকাশিত মতামত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে।)