চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দিল্লিকে বিদায় করে ফাইনালে ধোনিদের সামনে সাকিবরা

ম্যাচ অতটা কঠিন হয়ে ওঠার কথা ছিল না। কিন্তু টপাটপ কয়েকটি উইকেট হারিয়ে পথ কঠিন করে তোলে কলকাতাই। শেষ হাসি অবশ্য সাকিব-মরগানদেরই। দিল্লিকে ৩ উইকেটে হারিয়ে ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে তারা। যেখানে প্রতিপক্ষ ধোনির চেন্নাই।

প্রথম কোয়ালিফায়ারে জিতে সবার আগে ফাইনালের টিকেট কেটে বসে ছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির চেন্নাই সুপার কিংস। তাদের কাছে হেরে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে আরেকটি সুযোগ পেয়েছিল দিল্লি ক্যাপিটালস। কলকাতা নাইট রাইডার্স সেখানে এলিমিনেটরে বিদায় করে আসে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে। শেষে দিল্লিকে হারিয়ে গেল শিরোপার মঞ্চে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

১৫ অক্টোবর দুবাইয়ে শিরোপা লড়াইয়ে নামবে ধোনির চেন্নাই ও সাকিবদের কলকাতা।

দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে শুরুতে ব্যাট করে নির্ধারিত ওভারে ৫ উইকেটে কেবল ১৩৫ পর্যন্ত যেতে পারে দিল্লি। রান তাড়ায় উড়ন্ত শুরুর পর সেটাই টপকাতে ১৯.৫ ওভার পর্যন্ত খেলতে হয় কলকাতাকে, হারাতে হয়েছে ৭ উইকেট।

সাকিব আল হাসান এদিনও উইকেটের দেখা পাননি। তবে শুরুতে বল হাতে রান আটকে রাখার কাজটা করেছেন। ৪ ওভারে ২৮ রান খরচ করেছেন। ব্যাট হাতে যখন সুযোগ ছিল গত ম্যাচের মতো খেলা শেষ করে আসার, তখন ২ বলে শূন্যরানে ফিরেছেন অশ্বিনের কাছে এলবিডব্লিউ হয়ে।

অথচ রান তাড়ায় নেমে ৭৪ বলে ৯৬ রানের উদ্বোধনী জুটি এনেছিলেন শুভমন গিল ও ভেঙ্কটেশ আয়ার। ৪১ বলে ৫৫ করে আয়ার ফিরে যান, ৪ চার ও ৩ ছয়ের সাহায্যে।

বিজ্ঞাপন

একটি করে চার-ছয়ে ৪৬ বলে ৪৬ রান শুভমনের। পরে নিতিশ রানা ১২ রানে সাজঘরে হাঁটা দেন।

এরপরই বিপর্যয়ে পড়ে কলকাতা। ১২৩ রানের সময় দ্বিতীয় উইকেট পড়ে, ১৩০ রানের সময় সেটি দাঁড়ায় ৭ উইকেট হারানোর পরিসংখ্যানে। দিনেশ কার্তিক, অধিনায়ক ইয়ন মরগান, সাকিব, সুনিল নারিন, সকলে রানের খাতাই খুলতে পারেননি।

রাহুল ত্রিপাঠী ১১ বলে ১২ রানে ম্যাচ শেষ করে আসেন।

বিদায় নিতে নিতে নর্টজে, অশ্বিন, রাবাদা দুটি করে উইকেট নিয়েছেন শেষ কামড় দেয়ার পথে। এক উইকেট আভেস খানের।

আগে পৃথ্বী শ ১২ বলে ১৮, শেখর ধাওয়ান ৩৯ বলে ৩৬, মার্কাস স্টয়নিস ২৩ বলে ১৮, শিমরন হেটমায়ার ১০ বলে ১৭ ও শ্রেয়াস আয়ারের ২৭ বলে অপাজিত ৩০ রানে মাঝারি সংগ্রহ জমায় দিল্লি।

সাকিবের মতো উইকেটশূন্য থাকেন নারিনও। বরুণ চক্রবর্তী ২টি ও লোকি ফার্গুসন, শিভাম মাভি নিয়েছেন একটি করে উইকেট।