চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দারুণ এ উদ্যোগ যেন সফলভাবে শেষ হয়

প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ‘বিশেষ গণটিকা কার্যক্রম’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর। তার জন্মদিনকে এবার বিশেষভাবে স্মরণীয় করে রাখতে দারুণ এক উদ্যোগ নিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ওইদিন (মঙ্গলবার) ‘বিশেষ গণটিকা কার্যক্রম’- এর আওতায় সারাদেশের ৮০ লাখ মানুষকে করোনাভাইরাসের টিকা দেয়া হবে।

এক ভার্চুয়াল প্রেস ব্রিফিংয়ে রোববার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, ‘আগামী মঙ্গলবার থেকে ফের গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে। ওইদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন। তার জন্মদিনে ৮০ লাখ মানুষকে প্রথম ডোজ করোনার টিকা দেয়া হবে। তবে ওই ক্যাম্পেইন চলবে এক সপ্তাহ। বাকি দিনগুলোতে দৈনিক ৬ লাখ ডোজ টিকা প্রদান করা হবে।’

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে আমরা এরই মধ্যে জেনেছি, ওই বিশেষ গণটিকা কর্মসূচিতে দেশের ৪ হাজার ৬০০ ইউনিয়ন পরিষদ, ১ হাজার ৫৪ পৌরসভায় প্রায় ৩২ হাজার স্বেচ্ছাসেবী এই কার্যক্রমে অংশ নেবে। এরই মধ্যে প্রতিটি ইউনিয়নেই টিকা দেওয়ার জন্য বুথ স্থাপন করা হয়েছে। আগে থেকে এসব প্রস্তুতি সুন্দর পরিকল্পনারই অংশ।

বিজ্ঞাপন

এই কর্মসূচিতে আরেকটি ভালো উদ্যোগ আছে; চল্লিশোর্ধ্ব নাগরিক, বৃদ্ধ, শারীরিকভাবে অক্ষম, শিক্ষার্থী এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষকে টিকা নেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। এমনকি যারা টিকা নিতে নিবন্ধন করেও খুদে বার্তা পাননি, তারাও অগ্রাধিকার পাবেন এবার।

এর আগে গত আগস্টে প্রথমবারের মতো গণটিকা কর্মসূচি হাতে নিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সেবার প্রায় ৪৫ লাখ মানুষকে টিকা দেয়া হয়েছিল। সেই কর্মসূচিতেই প্রথম বারের মতো আগে থেকে নিবন্ধন ছাড়াই শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়েই মানুষ টিকা নিতে পেরেছিল। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অনিয়ম-বিশৃঙ্খলা ছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সেই উদ্যোগ ছিল দারুণ প্রশংসিত।

আমাদের বিশ্বাস, আগের সেই গণটিকা কর্মসূচির অনিয়ম-বিশঙ্খলা থেকে শিক্ষা নিয়ে নতুন কর্মসূচি আরও সুশৃঙ্খলভাবে শেষ করবে সরকার। তবে শুধু তাদের ওপরই দায় না চাপিয়ে সাধারণ মানুষকেও সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে। নিজে টিকা নেওয়ার পাশাপাশি অন্যদের টিকা নিতেও সাহায্য করবেন। তবেই চমৎকার এই কর্মসূচি সুন্দর ও সফলভাবে শেষ হবে।