চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দলের ভারসাম্য যথেষ্ট ভালো: প্রধান নির্বাচক

বাংলাদেশের ওয়ানডে দলে পালাবদলের হাওয়া টের পাওয়া গিয়েছিল উইন্ডিজ সিরিজের জন্য প্রাথমিক দল ঘোষণার পরই। ২৪ সদস্যের দলেও ছিলেন না সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। শনিবার চূড়ান্ত করা হয়েছে ১৮ সদস্যের মূল স্কোয়াড।

যেখানে আছেন নতুন তিন ক্রিকেটার-শরিফুল ইসলাম, মেহেদী হাসান ও হাসান মাহমুদ। ১০ মাসের করোনা বিরতির পর নতুন করে সাজানো দল নিয়ে আশাবাদী প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। এই দলে ২০২৩ বিশ্বকাপের ভাবনার প্রতিফলন আছে বলে জানালেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

‘১৮ জনের স্কোয়াড, কোভিড পরিস্থিতি মাথায় রেখেই আমরা স্কোয়াডটা বড় করেছি। কারণ কে কখন অসুস্থ হয়, আসলে এ চিন্তা করেই স্কোয়াডটা বড় করেছি। আমরা তিনজন অনভিষিক্ত ক্রিকেটারকে নিয়েছি, এটা পরিকল্পনার অংশ। এ সিরিজ থেকেই আমরা শুরু করছি। ওদের তৈরি করা এবং টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে রেখে কাজ করানোর জন্যই এই তিনজনকে রাখা হয়েছে।’

‘সবকিছু মিলিয়ে আমি মনে করি আমাদের পরিকল্পনার প্রথম ধাপ শুরু হল এই সিরিজ থেকে। আশা করছি এই সিরিজে ইতিবাচক ক্রিকেট খেলে ভালো ক্রিকেটটা দেখতে পারবো। ২০২৩ বিশ্বকাপ আছে ওয়ানডে, সেটার একটা পরিকল্পনা আছে। এখন আমরা চিন্তা করছি সিরিজ বাই সিরিজ যাবো। যেহেতু আমরা ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পেয়েছি প্রথমেই ঘরের মাঠে আমরা চাই ভালো ক্রিকেটটা খেলে সিরিজটা শুরু করতে।’

ওয়ানডে দলে প্রথমবার ডাক পেয়েছেন তারা

বিজ্ঞাপন

ওয়ানডে দলে রাখা হয়েছে ছয় পেসার, তিন বিশেষজ্ঞ স্পিনার। দলের ভারসাম্যে তাই শতভাগ আস্থা প্রধান নির্বাচকের, ‘এখানে সব ধরণের সমন্বয় রাখা হয়েছে, পেস বোলিং, স্পিন যখন যে পরিকল্পনা দরকার হবে। দলের ভারসাম্য যথেষ্ট ভালো। ব্যাটিং, বোলিং সব দিক দিয়ে একটা ভারসাম্য রাখা হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি এই দল আমাদের ভালো একটা সিরিজ উপহার দিবে।’

‘আমাদের জন্য একটা নতুন শুরু দরকার। কারণ একটা লম্বা বিরতি গিয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এত বড় বিরতি মানে নতুন করে শুরু করার অর্থাৎ শূন্য থেকে শুরু করা। সে হিসেবে খেলোয়াড়দের উপর একটা চাপ অবশ্যই থাকবে, চ্যালেঞ্জ নিয়ে খেলতে হবে। যেহেতু আমরা ঘরের মাঠে খেলছি আরও বেশি চ্যালেঞ্জের। প্রত্যাশা থাকবে ভালো ক্রিকেট খেলা।

‘আমার বিশ্বাস আমাদের খেলোয়াড়রা যথেষ্ট অভিজ্ঞ। নতুন এবং পুরাতন মিলিয়ে অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে ভালো একটা দল হয়েছে। আমি আশা করছি এই সিরিজে আমরা ভালো ক্রিকেট উপহার দিতে পারবো।’-বলেন মিনহাজুল।

বাংলাদেশ সফরে ক্যারিবীয়রা এসেছে খর্বশক্তির দল নিয়ে। করোনা সংক্রমনের শঙ্কায় নিয়মিত ক্রিকেটারদের অনেকেই আসেননি। প্রধান নির্বাচক মনে করিয়ে দিলেন বাংলাদেশ খেলবে টিম ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে, কারা এসেছে সেটি মুখ্য নয়।

‘আমরা খেলবো ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে। আমাদের চেয়ে ওদের ক্রিকেটীয় অভিজ্ঞতা অনেক অনেক বেশি। আমাদের জন্য ঘরের মাঠের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ১০ মাস পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেতে ফিরতে যাচ্ছি। আআমদের জন্যও এটা একটা চাপ কাজ করবে। এসব চিন্তা না করে একটা আন্তর্জাতিক খেলে, আমাদের ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। সবাই মিলে টোটাল পারফরম্যান্সে এই সিরিজটা আমরা ভালো করতে চাই। ভালো ক্রিকেট খেলে অবশ্যই ভালো একটা সিরিজ প্রত্যাশা করছি।’