চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তিন সিটিতে বিএনপির নির্বাচন বর্জন

তিন সিটিতেই নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন। মওদুদ আহমেদ দাবি করেছেন এর মাধ্যমে সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের বড় পরাজয় হয়েছে।

সেসময় ঢাকা উত্তরের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল এবং দক্ষিণের প্রার্থী মির্জা আব্বাসের স্ত্রী আফরোজা আব্বাস উপস্থিত ছিলেন। মির্জা আব্বাস আত্মগোপনে আছেন।

কারচুপি এবং ভোটকেন্দ্র দখলসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে এর আগে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া তার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেন।

সংবাদ সম্মেলনে মওদুদ বলেন, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আশায় বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল। আশা করেছিল অবাধ-সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। তবে সকাল থেকে নির্বাচনের চিত্র ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন।

ঢাকা ও চট্টগ্রামের বিভিন্ন কেন্দ্রের চিত্র দিয়ে তিনি বলেন, অনেক জায়গায় বিএনপির এজেন্টদের কেন্দ্রে যেতে দেয়া হয়নি। যেতে দিলেও আধা ঘন্টার মধ্যে বের করে দেয়া হয়েছে। এখন বোঝা যাচ্ছে সরকারি দলকে সহায়তা করতেই তাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন ও আইন-শৃংখলা বাহিনী সরকারের পক্ষে কাজ করেছে অভিযোগ করে মওদুদ বলেন, ৫৮টি ওয়ার্ডে যত কেন্দ্র আছে সব কেন্দ্রে সাড়ে আটটার মধ্যে এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে। সবগুলো ওয়ার্ডে নগ্নভাবে ভোটারদের বাধা দিয়ে ভোটবিহিন নির্বাচন করছে। ৫ শতাংশ ভোটারও ভোট দিতে যেতে পারেননি। চট্টগ্রামেও একই অবস্থা ছিল।

ঢাকা সিটি উত্তরে, উত্তরা হাইস্কুল, টাউনহল ভোটকেন্দ্র, ৬ নম্বর ওয়ার্ডের, বনানী বিদ্যা নিকেতন সবগুলো কেন্দ্রে একটা ভোটারও ভোট দিতে পারেনি বলে অভিযোগ করেন তিনি।

মওদুদ আহমদ অভিযোগ করেন, উত্তরা বালিকা বিদ্যালয়, বনানী মডেল হাই স্কুল, আফতাব উদ্দীন মাদ্রাসায় একজন এজেন্টও থাকতে দেয়া হয়নি।

অধ্যাপক এমাজউদ্দিন আহমেদ স্বপরিবারে ভোট দিতে গেলেও তাকে ভোট দিতে বাধা দিয়ে দিয়ে জিজ্ঞেস করা হয়েছে, আপনি কেন এসেছেন।

পুলিশ ও র‌্যাবের সহায়তায় একতরফা নির্বাচন করছে সরকারি দল। এটা কোন নির্বাচন নয় বলে মন্তব্য করেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের আহবায়ক প্রফেসর এমাজউদ্দিন আহমদ দাবি করেন, নির্বাচন কমিশন অমার্জনীয় ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।

নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিলেও এর প্রতিবাদে কোন কর্মসূচি ঘোষণা করেনি বিএনপি।