চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ডাগআউটে বসে জিদানের সমালোচনায় ব্যস্ত রিয়াল ফুটবলার

শনিবার এল ক্ল্যাসিকোতে বার্সেলোনাকে তাদের মাঠেই ৩-১ গোলে হারিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীকে তাদের মাঠে হারানোয় লস ব্লাঙ্কোস সমর্থকদের ভালোবাসায় সিক্ত হয়েছেন রিয়াল বস জিনেদিন জিদান। সমর্থকদের ভালোবাসা পেলেও, একই ম্যাচে তাকে নিয়ে নিজ খেলোয়াড়দের বিদ্রোহের আভাস মিলেছে ইস্কোর বক্তব্য থেকে। শনিবারের ম্যাচে ডাগআউটে বসে কোচকে নিয়ে সমালোচনা করার সময় টিভি ক্যামেরায় ধরা খেয়েছেন এই স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড।

কড়া হেডমাস্টার হিসেবে বিশেষ খ্যাতি এবং কুখ্যাতি দুটোই কুড়িয়েছেন জিদান। তার ফর্মেশনের সঙ্গে মানানসই না হলে কাউকে ম্যাচের পর ম্যাচ যে বসিয়ে রাখতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করেন না ফরাসি কোচ সেটা গ্যারেথ বেল আর হামেস রদ্রিগেজকে দিয়েই বুঝিয়ে দিয়েছেন। একই হেঁয়ালির শিকার ইস্কোও ।

বিজ্ঞাপন

বেল আর রদ্রিগেজ তবু রিয়াল ছেড়ে বেঁচেছেন, কপাল মন্দ ইস্কোর। আরেকটা মৌসুম রিয়ালের ডাগআউট গরম করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই তার। চলতি মৌসুমে মাত্র দুই ম্যাচে শুরুর একাদশে খেলতে পেরেছেন, আর দুই ম্যাচ খেলেছেন বদলি হিসেবে। যে দুই ম্যাচে শুরুতে খেলেছেন তাকে প্রথমার্ধের পরপরই উঠিয়ে নেন জিদান।

বিজ্ঞাপন

বিষয়টা একদমই ভালো লাগেনি ইস্কোর। শনিবার বার্সার মাঠ ন্যু ক্যাম্পের ডাগআউটে বসে সেটা নিয়েই সমালোচনা করছিলেন পাশে বসে থাকা দুই সতীর্থ মার্সেলো ও লুকা মদ্রিচের সঙ্গে। কপাল মন্দ, মুভিস্টারের ক্যামেরা ঠিকই ধরে ফেলেছে যে জিদানকে নিয়ে ঠিক কি বলছিলেন ইস্কো!

টিভি ক্যামেরায় ইস্কোকে বলতে শোনা গেছে, ‘যদি জিদান আমাকে উঠিয়ে নেয় তবে সেটা ৫০ কিংবা ৬০ মিনিটের মধ্যে, কখনো কখনো প্রথমার্ধের সময়ই। আর যদি মাঠে নামায় তাহলে সেটা ৮০ মিনিটের পরে!’

ইস্কোর কথার জবাবে জোরে হাসতে দেখা গেছে মার্সেলোকে। মৃদু হেসে জবাব দিয়েছেন মদ্রিচ।

মূলত কাডিজ ম্যাচের পর থেকেই জিদানের কালো তালিকায় নাম পরেছে ইস্কোর। সেই ম্যাচে শুরুতে খেললেও বেশ বাজে খেলেছিলেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড, লা লিগায় মাত্র উঠে আসা কাডিজের কাছেও হেরে যায় রিয়াল। ম্যাচের পর ইস্কোর সমালোচনা করতে একটুও বাধেনি জিদানের। আর এখন এই সমালোচনা শোনার পর ২৮ বছর বয়সী স্প্যানিশ রিয়াল দলে খেলার সুযোগ না পেলে মোটেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না!