চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ট্রাম্পের র‌্যালির আগে সরিয়ে ফেলা হয় শারীরিক দূরত্ব নির্দেশক স্টিকার

তুলসায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রচারণা র‌্যালির কয়েক ঘণ্টা আগেই শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার স্টিকার সরিয়ে ফেলা হয়।

ওয়াশিংটন পোস্ট এবং এই র‌্যালির সঙ্গে সম্পর্কিত একজনের প্রকাশিত একটি ভিডিও এবং ছবিতে দেখা গেছে শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করার জন্য ওই র‌্যালিতে অংশগ্রহণকারীদের জন্য ‘এখানে বসবেন না, প্লিজ!’ লেখা স্টিকার সরিয়ে ফেলা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

তুলসার ১৯০০ আসনের ওই জায়গায় গত ২০ জুন ট্রাম্পের র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। সেই সময়েও করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছিলো তুলসা কাউন্টিতে। তখন মহামারী শুরু হওয়ার পর প্রথমবারের মতো এত বড় ইনডোর রাজনৈতিক জনসমাগম আয়োজন করায় বেশ সমালোচনার মুখে পড়েন ট্রাম্প।

নিরাপত্তার কথা ভেবে ব্যবস্থাপকরা ১২,০০০ টি এখানে বসবেন না লেখা স্টিকার কেনেন। যেন অংশগ্রহণকারীদের মাঝে মাঝে চেয়ার ফাঁকা রাখা যায়। র‌্যালির দিনও একটি করে চেয়ার ফাঁকা রেখে সেই স্টিকার লাগানো হয়। কিন্তু পরে ট্রাম্পের প্রচারণার পক্ষ থেকে ট্রাম্প আসার কিছুক্ষণ আগে ওই স্টিকার লাগানো বন্ধ করা হয় এবং যেগুলো লাগানো ছিলো সেগুলোও তুলে ফেলা হয়।

বিজ্ঞাপন

ওয়াশিংটন পোস্টের ওই ভিডিও ক্লিপে দেখা যায়, একজন স্যুট পরা এবং আরেকজন ব্যাজ ও ফেসমাস্ক পরা এই ‍দুজনকে চেয়ার থেকে স্টিকারগুলো তুলতে দেখা যায়। পরে যখন ট্রাম্প সেখানে অংশ নেন তখন জনগণ একসঙ্গে জড়ো হয়ে ছিলো এবং মাঝখানে কোনো আসনই ফাঁকা ছিলো না।

তবে এই বিষয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করেননি ট্রাম্পের প্রচারণার মুখপাত্র টিম মুরটাফ। বরং তিনি বলেন, স্থানীয় নিয়মনীতি মেনেই এই র‌্যালি করা হয়েছে। সেখানে প্রবেশের আগে সবার তাপমাত্রা পরিমাপও করা হয়েছে, সবাইকে মাস্ক দেওয়া হয়েছে এবং হ্যান্ড সানিটাইজার সরবরাহ করা হয়েছে।

প্রচারণার পক্ষ থেকে আরেক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ওখানে সাইন দেওয়া ছিলো আর আমরা কোনো প্রচারণার কর্মীকে সেসব সরাতে বলিনি।

তবে ট্রাম্প বা হোয়াইট হাইজের পক্ষ থেকে ওই স্টিকার সরাতে বলা হয়নি বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউজের কর্মকর্তারা।

জুন ২৩ এর পরে তুলসাতে ২৫৯ টি নিশ্চিত আক্রান্তের তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া  ট্রাম্প প্রচারণারও ছয়জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আর তুলসা র‌্যালিতে অংশ নেওয়া সিক্রেট সার্ভিসের কয়েক ডজন কর্মী এবং এজেন্টকে সেলফ কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।