চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টাক ঢাকতে হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করিয়েছেন তারা

মাথায় টাক পড়া নতুন কিছু নয়। নানা কারণে চুল পড়ে মাথায় টাক পড়ে যায় অনেকেরই। এই টাক মাথা ঢাকতে কেউ কেউ আবার হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করিয়ে থাকেন। যে তালিকায় নাম আছে বলিউড তারকাদের অনেকের।

মাথা ভর্তি চুল নিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করলেও একটা সময় এসে কিছু তারকার মাথায় টাক পড়ে যেতে দেখা যায়। পর্দায় তাদের সেই টাক ধরা পড়ে ভক্তদের কাছেও। পরবর্তীতে হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্টের মাধ্যমে সেই টাক ঢেকেছেন তারা। যদিও নিজেদের হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্টের কথা নিজ মুখে স্বীকার করতে রাজি নন এ অভিনেতারা:

সালমান খান
২০০২ সালে মাথার অধিকাংশ চুল পড়ে যাওয়ার বিষয়টি অনুভব করেন অভিনেতা সালমান খান। ২০০৩ সালে প্রথমে মাথার টাক ঢাকতে ভারতে হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করালেও সেটিতে ব্যর্থ হন তিনি। পরবর্তীতে ২০০৭ সালে দুবাই গিয়ে আমেরিকান এক সার্জনের কাছে আবারও ট্রান্সপ্ল্যান্ট করান এই সুপারস্টার।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

অমিতাভ বচ্চন
টাক ঢাকার পদ্ধতি অবলম্বন করেছিলেন বিগ বি অমিতাভ বচ্চন নিজেও। টেলিভিশনের পর্দায় কোনো এক অনুষ্ঠানে টাকের কিছু অংশ দেখা যায় প্রথমবার। পরে ২০০০ সালে তার সেই টাক আবার ঢেকে যেতেও দেখা যায়। তবে হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট কোথায় করিয়েছেন, এ বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

সঞ্জয় দত্ত
বেশ ঝাকড়া চুল নিয়েই ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন সঞ্জয় দত্ত। বয়সের সঙ্গে টাক পড়ে তার মাথাতেও। সেই টাক মাথা ঢাকতে ২০১৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রে হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করিয়েছেন তিনি।

অক্ষয় কুমার
বলিউড খিলাড়ি অক্ষয় কুমারও হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করিয়েছেন বলে মনে করে অনেকেই। ক্যারিয়ারের মাঝামাঝি সময়ে অক্ষয়ের মাথার সামনের কিছু অংশের চুল পাতলা দেখালেও পরে সেই অংশের চুল আবার ঘন হয়ে উঠতে দেখা যায়।

গোবিন্দ
দীর্ঘদিন ধরে রূপালি পর্দার আড়ালে গোবিন্দ। মাথায় টাক দেখা যেতে শুরু করেছিল এই অভিনেতারও। পরে সালমান খানের পরামর্শে তিনিও ট্রান্সপ্ল্যান্ট করান।

অক্ষয় খান্না
টাক পড়েছিল অক্ষয় খান্নার মাথাতেও। সেই টাক ঢাকতে হেয়ার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করিয়েছেন তিনি। তবে সেই ট্রান্সপ্ল্যান্ট খুব একটা কাজে দেয়নি তার। অবশেষে আর টাক ঢাকার খুব একটা চেষ্টা করতে দেখা যায়নি তাকে।