চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চুক্তিপত্রের কঠিন শর্তে ‘সমাধান’ খুঁজছে বিসিবি

টেস্ট ক্রিকেটকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটকে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন সাকিব আল হাসান। এপ্রিলে টেস্ট খেলতে শ্রীলঙ্কা না গিয়ে টাইগার অলরাউন্ডার খেলবেন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে। সাকিবের এমন সিদ্ধান্তে নড়েচড়ে বসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

দফায় দফায় খেলোয়াড়-কোচ-নির্বাচক-পরিচালকদের সঙ্গে আলোচনার পর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন নিয়েছেন কঠিন এক সিদ্ধান্ত। কোনো সংস্করণে খেলতে না চাইলে বা আগ্রহ কম থাকলে সেটি জানাতে হবে কেন্দ্রীয় চুক্তির আগেই।

বিজ্ঞাপন

নতুন চুক্তিপত্রে উল্লেখ থাকবে সারাবছর কে কোন ফরম্যাট খেলতে আগ্রহী। সে অনুযায়ী নির্বাচকরা দল বানাবেন। মুখে না বললেও খেলোয়াড়দের পূর্ণ স্বাধীনতা দেয়ার পেছনে রয়েছে বিসিবি সভাপতির ক্ষোভ-হতাশাও।

বিজ্ঞাপন

নাজমুল হাসান বলেছেন, ‘কে কোন ফরম্যাট খেলতে চায় বলতে হবে। জাতীয় দলে খেলবে নাকি ওখানে। চুক্তি সই করলে যেতে দেব না। কাগজে-কলমে লিখিত থাকবে। সাকিবকেও আমরা আটকাতে পারতাম। তাতে কী হতো! ভালো পারফরম্যান্স কী আমরা পেতাম। আগেও তো টেস্ট খেলতে চায়নি।’

টেস্ট খেলতে অনীহা সাকিব ছাড়াও অনেকেরই আছে। অনেকদিন ধরে চলা এ সমস্যার সমাধান চুক্তিপত্রের মাধ্যমেই করবে বিসিবি।

বাংলাদেশের মাত্র দুই ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ও মোস্তাফিজুর রহমান আইপিএলে নিয়মিত খেলেন। এবারও তারা দল পেয়েছেন। ভবিষ্যতের কথা ভেবে সবার জন্যই সিদ্ধান্ত নেয়ার স্বাধীনতা দেবে বিসিবি।

মন থেকে না চাইলে যে শতভাগ পারফরম্যান্স সম্ভব নয় সেটি বুঝেছে বিসিবি। ২০২১ সালের জন্য কেন্দ্রীয় চুক্তি চূড়ান্ত করেনি বিসিবি। যারা থাকবেন তাদের চুক্তিপত্রে উল্লেখ করতে হবে জাতীয় দলের খেলার মাঝে ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে আগ্রহ আছে কিনা। থাকলে চুক্তিতে বাদ দেয়া হবে ওই ক্রিকেটারকে।