চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চট্টগ্রামের অভয়ারণ্যে বিপন্ন প্রজাতির ৩টি লজ্জাবতী বানর অবমুক্ত

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার হওয়া বিপন্ন প্রজাতির ৩টি লজ্জাবতী বানরকে অবমুক্ত করা হয়েছে। চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ বনবিভাগকে নিয়ে বানর তিনটিকে চট্টগ্রাম শহর থেকে ৭৬ কিলোমিটার দূরে প্রাকৃতিক আবাসস্থল হাজারিখিল বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে ছেড়ে দেয়া হয়।

গত কয়েকমাসের ব্যবধানে বিভিন্নসময় চট্টগ্রামে ফটিকছড়ির হাজারিখিল এলাকা থেকে বিপন্ন প্রজাতির ওই ৩টি বানরকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করেছিল স্থানীয়রা। পরে ফটিকছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সহযোগিতায় লজ্জাবতী বানর ৩টিকে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় হস্তান্তর করা হয়। চিড়িয়াখানায় পর্যবেক্ষণ ও চিকিৎসার মাধ্যমে বানরগুলোকে সুস্থ করে তোলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ শাহাদাত হোসাইন শুভ।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বনবিভাগের তথ্যমতে, বন্যপ্রাণী বেঁচে থাকার নিরাপদ ও প্রাকৃতিক আবাসস্থল হিসেবে পরিচিত চট্টগ্রামের হাজারিখিল অভয়ারণ্য অন্যতম। লজ্জাবতী বানরগুলো ওই অভয়ারণ্যে নিরাপদে বেঁচে থাকতে পারবে বলে মনে করেছেন স্থানীয়রা।

বিজ্ঞাপন

জীববৈচিত্র রক্ষা ও বন্যপ্রাণি সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বনবিভাগ ও চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ ইতিবাচক ভূমিকা পালন করছে বলে জানান বনবিভাগের রেঞ্জ অফিসার অসীম কান্তি দাশ। সেই ধারাবাহিকতায় যেকোনো অসুস্থ বন্যপ্রাণী পাওয়াগেলে সাথে সাথে চিকিৎসা দিতে এগিয়ে আসে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ।

বিশাল চা-বাগান বেষ্টিত হাজারিখিল অভয়ারণ্যে নানা প্রজাতির বন্যপ্রাণী, আড়াইশ প্রজাতির গাছ ও প্রায় দেড়শো প্রজাতির পাখি রয়েছে। ২ হাজার ৯শ ৮ হেক্টর আয়তনের এ বনটিকে ২০১০ সালে বন্যপ্রাণী অভয়ারন্য হিসেবে ঘোষণা করা হয়।