চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চট্টগ্রামে শহরের চেয়ে গ্রামে করোনায় আক্রান্ত বেশি

চট্টগ্রামে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় শহরের চেয়ে গ্রামের বেশি মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তের হারও বেড়েছে। এ সময়ে এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের রিপোর্টের প্রেক্ষিতে বাসস জানায়, নগরীর সাতটি ও কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে গতকাল শনিবার চট্টগ্রামের ৬৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় নতুন পজিটিভ ১৩৬ জনের মধ্যে শহরে ৬৭ জন ও ১১ উপজেলায় ৬৯ জন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

সংক্রমণ হার ২১ দশমিক ১৮ শতাংশ। ফলে জেলায় মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৫৫ হাজার ৯৮১ জনে। এতে শহরের বাসিন্দা ৪৪ হাজার ১০০ জন ও গ্রামের ১১ হাজার ৮৮১ জন।

উপজেলা পর্যায়ে আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ ফটিকছড়িতে ৩০ জন, সীতাকুণ্ডে ১৩ জন, মিরসরাইয়ে ১০ জন, হাটহাজারীতে ৪ জন, বাঁশখালী ও পটিয়ায় ৩ জন করে, রাঙ্গুনিয়ায় ২ জন, রাউজান, লোহাগাড়া, আনোয়ারা ও চন্দনাইশে একজন করে রয়েছেন।

চট্টগ্রামে গতকাল করোনায় শহরের একজন একজন মারা গেছে। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে এখন ৬৫৭ জন হয়েছে। এতে শহরের বাসিন্দা ৪৬০ জন ও গ্রামের ১৯৭ জন। সুস্থতার ছাড়পত্র নিয়েছেন ১৩৮ জন। ফলে মোট আরোগ্য লাভকারীর সংখ্যা ৪৭ হাজার ৮৬৭ জনে উন্নীত হয়েছে।

এর মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ৬ হাজার ২৪৭ জন এবং ঘরে থেকে চিকিৎসায় সুস্থ হন ৪১ হাজার ৬২০ জন। হোম আইসোলেশনে নতুন যুক্ত হন ২৫ জন ও ছাড়পত্র নেন ৩৮ জন। বর্তমানে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন ১ হাজার ১২৮ জন।

গতকাল একজনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এ মাসের প্রথম ১৯ দিনে করোনায় মৃতের সংখ্যা এখন ৩৫ জন। এ মাসে সর্বোচ্চ ৪ জন মারা যান ১৭ জুন। ৩ জন করে মারা যান পাঁচদিন। মৃত্যুশূন্য ছিল তিনদিন।

বিজ্ঞাপন

করোনার সর্বোচ্চ সংক্রমণ হার রেকর্ড হয় ১৩ জুন, ২৪ দশমিক ৫৯ শতাংশ। এদিন মাসের সর্বোচ্চ ২২৫ জনের নমুনায় জীবাণুর উপস্থিতি শনাক্ত হয়। গতকালের সংক্রমণ হার এ মাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

একদিনে সবচেয়ে কম আক্রান্ত শনাক্ত হয় ৬ জুন, ৬০ জন। সংক্রমণ হার ছিল ১৩ দশমিক ০৭ শতাংশ। মাসের সর্বনিম্ন ৯ দশমিক ০৪ শতাংশ সংক্রমণ হার রেকর্ড হয় ১২ জুন।

ল্যাবভিত্তিক রিপোর্টে দেখা যায়, ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৩৪০ জনের নমুনা পরীক্ষায় শহরের ১৯ ও গ্রামের ৪৭ জন জীবাণুবাহক পাওয়া যায়।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৬৭ জনের নমুনার মধ্যে গ্রামের ২ জনসহ ১৬ জন আক্রান্ত শনাক্ত হন। নগরীর একমাত্র বিশেষায়িত কোভিড চিকিৎসা কেন্দ্র আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের আরটিআরএল-এ পরীক্ষিত ২৭ টি নমুনায় ১০ টির রেজাল্ট পজিটিভ আসে। এরা সবাই শহরের বাসিন্দা।

পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ জনের নমুনার মধ্যে একটিতে ভাইরাসের উপস্থিতি চিহ্নিত হয়।
বেসরকারি ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরির মধ্যে শেভরনে ৮৭ টি নমুনা পরীক্ষা করা হলে গ্রামের ৩ টিসহ ৮ টি, মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ২৭ টি নমুনায় শহরের ৪ ও গ্রামের ৬ টি, এপিক হেলথ কেয়ারে ৩৯ টি নমুনার মধ্যে শহরের ১৫ ও গ্রামের ৭ টিতে করোনার জীবাণু থাকার প্রমাণ মেলে।

এদিন চট্টগ্রামের ৪৫ জনের নমুনা কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে পাঠানো হয়। পরীক্ষায় গ্রামের তিনটির পজিটিভ এবং অবশিষ্টগুলোর ফলাফল নেগেটিভ আসে।

তবে, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি), ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু), ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ও মেডিকেল সেন্টার ল্যাবে কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি।

ল্যাবভিত্তিক রিপোর্ট পর্যবেক্ষণে বিআইটিআইডি’তে ১৯ দশমিক ৪১ শতাংশ, চমেকে ২৩ দশমিক ৮৮, আরটিআরএলে ৩৭ দশমিক ০৪, পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ শতাংশ, শেভরনে ৯ দশমিক ১৯, মা ও শিশু হাসপাতালে ৩৭ দশমিক ০৪, এপিক হেলথ কেয়ারে ৫৬ দশমিক ৪১ এবং কক্সবাজার মেডিকেল ল্যাবে ৬ দশমিক ৬৬ শতাংশ সংক্রমণ হার নির্ণিত হয়।