চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনায় বাংলাদেশে ভাইবারের ব্যবহার বেড়েছে ৭২ শতাংশ

করোনকালে বাংলাদেশে ভাইবার ব্যবহারকারীর হার বেড়েছে। ২০১৯ এর তুলনায় ২০২০ সালে সক্রিয়ভাবে ভাইবার ব্যবহারের পরিমাণ বেড়েছে ৭২ শতাংশ।

মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে রাকুতেন ভাইবার অ্যাপ কর্তৃপক্ষ।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

এতে বলা হয়, ভাইবারে লগ ইন করা সংখ্যার উপর ভিত্তি করে দেখা গেছে, বাংলাদেশিরা ভাইবার কমিউনিটিতে বেশি সময় ব্যয় করেছে। ব্যবহারকারীদের কমিউনিটিতে অংশগ্রহণের হার ১৪৯ শতাংশ বেড়েছে এবং কমিউনিটিতে বার্তা প্রেরণের হার ১১৬ শতাংশ বেড়েছে। তারা আরও অধিক পরিমাণে টেক্সটিং, অডিও কল, ভিডিও কল করেছে এবং চ্যাট এক্সটেনশান ব্যবহার করেছে। ভাইবারে ভিডিও কল ৪০ শতাংশ এবং চ্যাট এক্সটেনশান ব্যবহার ৪৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

গত বছর এশিয়া প্যাসিফিক (এপিএসি) অঞ্চলে বিনামূল্যে এবং সহজে যোগাযোগের জন্য বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় অ্যাপ রাকুতেন ভাইবারের ব্যবহার সামগ্রিকভাবে বেড়েছে। করোনার কারণে গত বছর মানুষের যোগাযোগের ক্ষেত্রে লক্ষ্যণীয় পরিবর্তন এসেছে।

বিজ্ঞাপন

এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে ২০২০ সালের ডিসেম্বরে ৪২১ শতাংশ ব্যবহারকারী বৃদ্ধির মাধ্যমে বছর শেষ করে অ্যাপ্লিকেশনটি। একই সময়ে ভাইবার থেকে পাঠানো বার্তার হার ৫০৯ শতাংশ বেড়েছে এবং গ্রুপে পাঠানো বার্তার হারও বহুগুণ বেড়েছে। এছাড়া কমিউনিটি মেসেজ পাঠানোর ক্ষেত্রে ভাইবারের কমিউনিটি ফিচারেরও বেশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। এই প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধির বিষয়টি ২০১৯ সালের একই সময়ে রেকর্ডকৃত তথ্যের ভিত্তিতে নির্ধারণ করা হয়েছে।

গত বছরের জানুয়ারি এবং ডিসেম্বরের তথ্যের তুলনা করলে বাংলাদেশের মতো এপিএসি অঞ্চলের নির্দিষ্ট বাজারে অ্যাপটির ব্যবহারে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি লক্ষ্যণীয় হয়েছে, যা বিগত ১০ বছরের মধ্যে গত বছরটিতেই হয়েছে সবচেয়ে বেশি।

ব্যবহারকারীদের উন্নতমানের সেবা প্রদানের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে এবং তাদের অ্যাপ ব্যবহারের অভিজ্ঞতাকে আরও সহজ করতে ভাইবার ২০২০ সালে মাই নোটস-এর মতো নতুন ফিচার চালু করে। এটি ব্যবহারকারীদের করণীয় কাজের তালিকা এবং তাদের সব ডিভাইসের মিডিয়াকে সুসংগত করতে সহায়তা করে। বার্থডে রিমাইন্ডার ব্যবহারকারীদের তাদের কন্টাক্ট লিস্টের মানুষদের বিশেষ দিন উদযাপনের তারিখ মনে করিয়ে দেয়। ডিসঅ্যাপেয়ারিং মেসেজ ব্যবহারকারীদের সংবেদনশীল বার্তার সময়কাল সীমাবদ্ধ করার সক্ষমতা প্রদান করে।

করোনায় অনলাইনে যোগাযোগের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ভাইবার গত বছর গ্রুপ কল ও অডিও কলে একসাথে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা দ্বিগুণ বাড়িয়ে সর্বোচ্চ ২০ জন করে।

এ বিষয়ে রাকুতেন ভাইবারের চিফ গ্রোথ অফিসার আনা জামেনস্কায়া বলেন, ‘২০২০ সালে বিশ্বে কাজের ধরনে, যোগাযোগ, ব্যবসা পরিচালনাসহ নানা বিষয়ে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। করোনা অসংখ্য মানুষের জীবনে বিপর্যয় ডেকে এনেছে, অনেক কিছু শিখিয়েছে এবং অভিনব উদ্ভাবনের দিকে পরিচালিত করেছে। আমরা নতুন বছরের শুরুতে সব ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীদের গোপনীয়তা রক্ষার নীতি বজায় রাখার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।