চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

করোনাভাইরাসের নতুন ধরণ ঠেকাতে সক্ষম ফাইজার ভ্যাকসিন

যুক্তরাজ্যে এবং দক্ষিণ আফ্রিকাতে চিহ্নিত নতুন ধরণের করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে কাজ করতে সক্ষম ফাইজার ভ্যাকসিন।

ভ্যাকসিন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ফাইজারের এক গবেষণায় প্রাথমিকভাবে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

ল্যাবরেটরিতে ওই গবেষণা দেখা যায়, ভাইরাসের নতুন ধরণটি ঠেকাতে যথেষ্ট অ্যান্টিবডির অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। তবে সেটি যুক্তরাজ্যে ভাইরাসের নতুন ধরণ ঠেকাতে যতটা সক্ষম বলে দেখা গেছে, দক্ষিণ আফ্রিকায় পাওয়া ধরণটি ঠেকাতে ততটা সক্ষম নয়।

বুধবার অনলাইনে প্রকাশিত এক বৈজ্ঞানিক গবেষণাপত্রে এ তথ্য তুলে ধরা হয় বলে জানিয়েছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল।

গবেষকরা ভ্যাকসিন এবং ড্রাগগুলো এখনও কোভিড -১৯ এর নতুন রূপগুলির বিরুদ্ধে কাজ করবে কিনা তা নির্ধারণের জন্য কাজ করে চলেছেন। তবে দেশটির সরকার ইতোমধ্যে স্কুল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং অন্যান্য স্থাপনাগুলো পুনরায় চালু করার অনুমতি দেবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

ফাইজারের এ অনুসন্ধান নতুন ধরণের করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে সম্প্রতি অন্যান্য গবেষক গ্রুপের করা অনুসন্ধানগুলোর প্রাথমিক ফলাফলের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

বিজ্ঞাপন

গবেষণা এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। ফাইজারের গবেষণা একটি ল্যাবে পরিচালিত হয়েছিল। এছাড়াও গবেষকরা ফলাফলগুলো পরিসংখ্যানগতভাবে তাৎপর্যপূর্ণ কিনা তা মূল্যায়ন করেননি।

করোনভাইরাস প্রোটিন সম্পর্কে গবেষণা করা টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ট্রাকচারাল জীববিজ্ঞানী জেসন ম্যাকলেল্যান বলেন, গবেষণায় অন্যান্য ফলাফলগুলি থেকে বোঝা যায় যে ভ্যাকসিন দেয়ার পরে নতুন ধরণের এ ভাইরাসটির প্রভাব তুলনামূলকভাবে বিনয়ী হবে, যা ভ্যাকসিনগুলোর জন্য সুসংবাদ।

ফাইজার কর্তৃপক্ষ এর আগেই জানিয়েছিল নতুন ধরণের এ ভাইরাস মোকাবেলার জন্য কোনও নতুন ভ্যাকসিনের প্রয়োজনীয়তা হবে না। ফাইজার এবং বায়োএনটেক এ নতুন ধরণের করোনার ভ্যাকসিন জন্য প্রস্তুত ছিল।

ফাইজার-বায়োএনটেক মেসেঞ্জার আরএনএ নামে একটি নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করে যা মার্কিন বায়োটেক মডার্নাও ব্যবহার করে থাকে।

অন্যদিকে করোনাভাইরাসের যে নতুন ধরণটি পাওয়া গেছে যুক্তরাজ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকায়, তার বিরুদ্ধে মডার্নার কোভিড-১৯ টিকাটি কার্যকরী বলে দেখা গেছে বলে দাবি করেছে মার্কিন ওষুধ নির্মাতা কোম্পানির বিজ্ঞানীরা।

জাতীয় স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট বিজ্ঞানীদের সহযোগিতায় মডার্নার প্রাথমিক গবেষণায় দেখা গেছে, দক্ষিণ আফ্রিকার রূপান্তরিত স্পাইক প্রোটিনগুলিকে আবদ্ধ করার ক্ষেত্রে এর ভ্যাকসিনের মাধ্যমে তৈরি অ্যান্টিবডিগুলি কম কার্যকর ছিল।

গবেষণাগারের প্রাথমিক পরীক্ষায় দেখা গেছে, এই টিকা দেয়ার পর শরীরের ভেতরে যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়, সেটি নতুন ধরণটি শনাক্ত ও ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে। তবে টিকা নেয়া মানুষদের ক্ষেত্রে এটি কতটা সত্যি, তা পুরোপুরি নিশ্চিত হতে আরও গবেষণার দরকার হবে।