চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এক সাকিবের জন্য একাদশে দুই পরিবর্তন

একের ভেতর দুই- সাকিব আল হাসানের ক্ষেত্রে কথাটি পুরোপুরি খাটে। তার অলরাউন্ডার সত্ত্বার অভাব পুষিয়ে নিতে বরাবরই একজন ব্যাটসম্যান ও একজন বোলার খেলাতে হয় বাংলাদেশকে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টেও ব্যতিক্রম হচ্ছে না।

সাকিব না থাকায় ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে বৃহস্পতিবার শুরু হতে যাওয়া সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে টাইগার একাদশে নিশ্চিতভাবেই আসছে দুটি পরিবর্তন। ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক জানালেন সেকথাই।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

‘সাকিব ভাই যেহেতু নেই, দুইজন খেলোয়াড় সে কারণে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। এটা শুধু আমি না, আপনারা সবাই জানেন। ওই হিসেবে দুইজন খেলোয়াড় নতুন করে খেলবে। দুই জায়গাতেই (ব্যাটিং-বোলিং) হয়ত নতুন করে খেলবে।’

চোটের কারণে ম্যাচের আগেরদিন ছিটকে গেছেন সাদমান ইসলামও। এ ওপেনারের জায়গায় আসতে পারে পরিবর্তন। মুমিনুল বললেন, ‘যেহেতু সাদমান নেই, এখানে একটা পরিবর্তন আসতে পারে। আর ছয় নম্বরে সাকিব ভাইয়ের জায়গায় একজন আসতে পারে।’

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ স্কোয়াডে বিকল্প ওপেনার হিসেবে আগে থেকেই আছেন সাইফ হাসান। সাকিব চোটে পড়ায় স্কোয়াডে যোগ করা হয়েছে সৌম্য সরকারকে। এ বাঁহাতির টেস্টে ওপেনিং করার অভিজ্ঞতা আছে। তামিম ইকবালের সঙ্গী হবেন সৌম্য, নাকি সাকিবের জায়গায় ছয় নম্বরে খেলবেন, সেটি যদিও স্পষ্ট নয়। ছয় নম্বরের ভাবনায় আছেন মোহাম্মদ মিঠুনও।

প্রথম টেস্টে সাতে ব্যাট করেছেন লিটন দাস। তার ওপেনিং করার অভিজ্ঞতা কম নয়। শেষ পর্যন্ত টিম ম্যানেজমেন্ট কী সিদ্ধান্ত নেয় সেটিই দেখার।

ব্যাটিংয়ে সাকিবের অভাব পুষিয়ে নেয়া গেলেও বোলিংয়ের জন্য স্কোয়াডে আর বাড়তি স্পিনার নেই। একাদশে তাই বাড়তে পারে পেসার। স্পিন ত্রয়ী তাইজুল ইসলাম, মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাঈম হাসানের একাদশে টিকে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। ব্যাটসম্যান বাড়াতে হলে ছেঁটে ফেলতে হবে একজনকে।

সৌম্য মিডিয়াম পেস বোলিংটা ভালোই করেন। সেটি বিবেচনায় নিলে দুই পেসারের সঙ্গে তৃতীয় পেসার হতে পারেন তিনিও। তাহলেই দুই স্পিনার রেখে ব্যাটসম্যানের ঘাটতি কমাতে পারে বাংলাদেশ। মুমিনুল অবশ্য জানিয়েছেন ম্যাচের আগে উইকেট দেখে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে কয়জন পেসার, কয়জন স্পিনার খেলবে।

চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টে খেলেছেন এক পেসার, মোস্তাফিজুর রহমান। সাইডবেঞ্চে বসেই টেস্টের পাঁচ দিন কাটাতে হয়েছে আবু জায়েদ রাহি, ইবাদত হোসেন, তাসকিন আহমেদদের। শেষে টেস্টে কে কে সুযোগ পান সেটি জানতে অপেক্ষা করতে হবে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত। সকাল সাড়ে ৯টায় শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হবে ম্যাচ।