চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ঊর্ধ্বতন নেতৃত্বের প্রতি বিশ্বাস রেখে সেনাসদস্য হিসেবে গড়ে উঠার নির্দেশ সেনাপ্রধানের 

ঊর্ধ্বতন নেতৃত্বের পারস্পারিক বিশ্বাস, সহমর্মিতা, ভ্রাতৃত্ববোধ বজায় রেখে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সুশৃংখল, দক্ষ ও যোগ্য সেনাসদস্য হিসেবে গড়ে উঠার নির্দেশ দিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ।

আজ বুধবার ২৪ পদাতিক ডিভিশন, চট্টগ্রামে রেজিমেন্টাল কালার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে রেজিমেন্টাল কালার বিতরণ কালে সেনাসদস্যদের এ নির্দেশনা দেন।

বিজ্ঞাপন

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) সহকারী পরিচালক রেজাউল আলম খান গণমাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বিজ্ঞাপন

সেনাবাহিনীর ৬টি ইউনিটের রেজিমেন্টাল কালার প্রদান অনুষ্ঠানে সেনাপ্রধান বলেন, সেনাবাহিনীর সামরিক ঐতিহ্য অনুযায়ী যে কোন ইউনিটের জন্য রেজিমেন্টাল কালার প্রাপ্তি অত্যন্ত গৌরবের বিষয়।

তিনি সকলকে ঊর্ধ্বতন নেতৃত্বের প্রতি আস্থা, পারস্পারিক বিশ্বাস, সহমর্মিতা এবং ভ্রাতৃত্ববোধ বজায় রেখে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সুশৃংখল, দক্ষ ও যোগ্য সেনাসদস্য হিসেবে গড়ে উঠার নির্দেশ দেন।

সেই সাথে তিনি সবাইকে পেশাদারিত্বের প্রত্যাশিত মান অর্জনের মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক যে কোন হুমকি মোকাবেলায় সদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ প্রদান করেন।

বিজ্ঞাপন

উপস্থিত সকলের উদ্দেশে দেয়া ভাষণের শুরুতে সেনাবাহিনী প্রধান হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধাভরে স্বরণ করেন।

এরআগে চট্টগ্রাম সেনানিবাসস্থ ইষ্ট বেংগল রেজিমেন্ট সেন্টারের এম আর চৌধুরী প্যারেড গ্রাউন্ডে সেনাবাহিনী প্রধান পৌঁছালে জিওসি, আর্মি ট্রেনিং এন্ড ডকট্রিন কমান্ড লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ এবং জিওসি, ২৪ পদাতিক ডিভিশন ও এরিয়া কমান্ডার চট্টগ্রাম এরিয়া মেজর জেনারেল এস এম মতিউর রহমান তাকে অভ্যর্থনা জানান।

পরে প্যারেড কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. রফিকুল ইসলাম এর নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর একটি চৌকষ দল কুচকাওয়াজ প্রদর্শন করে এবং সেনাবাহিনী প্রধান’কে সালাম প্রদান করে।

গৌরবোজ্জ্বল ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক ইউনিট সমূহকে সেনাবাহিনী তথা দেশমাতৃকার সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য রেজিমেন্টাল কালার প্রদান করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৬ সিগন্যাল ব্যাটালিয়ন, ১৮ বীর, ২০ বীর, ২১ বীর, ২২ বীর এবং ২৩ বীর আজকের কালার প্যারেডে অংশগ্রহণ করে এবং প্রধান অতিথির কাছ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে রেজিমেন্টাল পতাকা গ্রহণ করে।

অনুষ্ঠানে ঊর্ধ্বতন সেনাকর্মকর্তারা ও বিভিন্ন পদবীর সেনাসদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।