চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

কণ্ঠযোদ্ধা ইন্দ্রমোহন রাজবংশী আর নেই

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠযোদ্ধা ইন্দ্রমোহন রাজবংশী আর নেই। বুধবার (৭ এপ্রিল) সকাল সাড়ে দশটার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা তিনি।

খবরটি চ্যানেল আই অনলাইনকে জানান বর্ষীয়ান শিল্পী ফকির আলমগীর। তিনি জানান, ইন্দ্রমোহন  করোনায় আক্রান্ত হয়ে গত ৪ এপ্রিল হাসপাতালে ভর্তি হন। অবস্থার অবনতি হলে আইসিইউতে নেয়া হয় তাকে।

ফকির আলমগীর বলেন, ইন্দ্রমোহন রাজবংশী আমার বন্ধু। তার মৃত্যুতে খুব ঘনিষ্ট একজনকে হারালাম। বুধবার বিকেলে রাজারবাগ মহাশ্মশানে তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে।

কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করে ফকির আলমগীর জানান, ক’দিন আগে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের আরেক শিল্পী নমিতা ঘোষ মারা গেলেন, সরকার আনুষ্ঠানিক শোক জানালো। কিন্তু এমন কণ্ঠযোদ্ধার জন্য সংস্কৃতি অঙ্গনের কি কিছুই করার ছিলো না?

বিজ্ঞাপন

ইন্দ্রমোহনের মৃত্যুতে এই শিল্পী প্রশ্ন রেখে বলেন, ইন্দ্রমোহন বাংলার অসাধারণ একজন শিল্পী। তিনি অসংখ্য লোক গান গেয়েছেন। সেই সাথে একজন মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী। অথচ তার অসুস্থ হওয়ার পর কি রাষ্ট্র কিংবা সংস্কৃতি অঙ্গন নূন্যতম মূল্যায়ণ করেছে? করেনি, তাকে বরং ছুটতে হয়েছে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে। এমন শিল্পীর শেষযাত্রায় এগুলো খুব আফসোসের।

ফকির আলমগীর জানান, ইন্দ্রমোহন রাজবংশী মৃত্যুকালে রেখে গেছেন স্ত্রী দীপ্তি রাজবংশী। যিনি এখন শয্যাশায়ী। তার শারীরিক অবস্থাও ভালো না। তাদের একমাত্র পুত্র দীপঙ্কর রাজবংশী থাকেন অস্ট্রেলিয়া ও মেয়ে সংগীতা রাজবংশী থাকেন জাপানে। তারা নিজেরাও লোকগানের সাথে যুক্ত।

ভাওয়াইয়া, ভাটিয়ালী, জারি, সারি, মুর্শিদি গান গেয়ে ইন্দ্রমোহন মুগ্ধতা ছড়িয়েছেন গ্রাম-বাংলায়। পরবর্তীতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান গেয়ে নিজেকে রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

তিনি ২০১৮ সালে সংগীত বিভাগে একুশে পদক লাভ করেন।

 

বিজ্ঞাপন