চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আরিফুলের দারুণ শতকেও এড়ানো যায়নি হার

দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ের পর পাঁচ নম্বরে ব্যাট করতে নেমেছিলেন আরিফুল ইসলাম। স্রোতের বিপরীতে লড়াই করে করলেন দারুণ এক সেঞ্চুরি। কারোর কাছ থেকে যোগ্য সঙ্গ না পাওয়ায় বড় হয়নি দলীয় স্কোর। বিফলে গেছে আরিফুলের সুন্দর ইনিংস। টাইগার যুবারা পায়নি মাঠে জয়।

সোমবার কলিডজে হওয়া অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের পঞ্চম স্থান নির্ধারণীর প্লে অফ ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৬ উইকেটে হেরেছে রাকিবুল হাসানের দল।

Reneta June

টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ ৪৯.২ ওভারে ১৭৫ রানে অলআউট হয়। জবাবে পাকিস্তান ২১ বল হাতে রেখে ৪ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায়।

বিজ্ঞাপন

২৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ম্যাচের শুরুতেই চাপে পড়ে বাংলাদেশ। দলের বিপদের সময় ক্রিজে এসে আরিফুল ওপেনার ইফতেখার হোসেনকে নিয়ে ৫০ রানের জুটি গড়ে চাপ সামলানোর চেষ্টা করেন।৩ চারের মারে ২৫ রান করে রান আউট হন ইফতেখার, ভেঙে যায় জুটি।

৮১ রানের মাথায় আউট হন ১৪ রান করা উইকেটরক্ষক ব্যাটার ফাহিম। এরপর ষষ্ঠ উইকেটে মেহরাবকে নিয়ে ৩৬ রানের জুটি গড়লেও বাকি ব্যাটাররা আসা-যাওয়ায় ব্যস্ত থাকেন। একাই লড়েন আরিফুল।

নবম ব্যাটার হিসেবে আউট হওয়ার আগে আরিফুল তুলে নেন শতক। ৫ চার ও ৪ ছক্কায় ১১৯ বলে ১০০ রানের চমৎকার ইনিংস খেলে তিনি বাকিদের সঙ্গে নিজের তফাৎ বুঝিয়ে দেন।।পরের দিকের কোনো ব্যাটার হাল ধরতে না পারায় ১৭৫ রানে থামে বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

পাকিস্তানি বোলার মেহরান মুমতাজ ১০ ওভারে মাত্র ১৬ রান দিয়ে নেন ৩ উইকেট। আওয়াইস আলিও পকেটে ভরেন ৩ উইকেট।

মুহাম্মাদ শেহজাদ ও হাসিবুলাহ খানের ৭৬ রানের ওপেনিং জুটিতে ভালো শুরু পায় পাকিস্তান। নাইমুর রহমানের বলে ৩৬ রান করে শেহজাদ ফিরলে জুটি ভাঙে।

তিনে নামা ইরফান খানের সঙ্গে আরও ৬৪ রান যোগ করেন হাসিবুল্লাহ। ১০৭ বলে ৪টি চার ও ৪ ছক্কায় ৭৯ রান করা হাসিবুল্লাহ বাংলাদেশ অধিনায়ক রাকিবুলের শিকারে পরিণত হন।

এরপর ২৪ রান করা ইরফানকে রান আউট করেন রাকিবুল। একইসঙ্গে তার বলে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফেরেন প্রতিপক্ষের অধিনায়ক কাসিম আকরাম। ২২ রান করা আব্দুল ফাসেহ ২২ রানে অপরাজিত থেকে ম্যাচ শেষ করে ফেরেন।

আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে সপ্তম স্থান নির্ধারণী ম্যাচে খেলবে বাংলাদেশ।