চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ট্রাইব্যুনালে আত্মসমর্পণ করতে আসা ব্যক্তি পুলিশ হেফাজতে

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার ৪২তম রায়ের আগে আজ সকালে এক ব্যক্তি ট্রাইব্যুনালের গেইটে এসে নিজেকে আসামি দাবী করে আদালতে আত্মসমর্পণ করতে চান। তবে তাকে ট্রাইব্যুনালের গেইটের বাইরে নিরাপত্তা কর্মীদের কক্ষে রেখে রায়ের পর পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়।

এই ব্যক্তির বিষয়ে আজকের মামলার আসামি পক্ষের আইনজীবী আব্দুস সাত্তার পালোয়ান চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন: ট্রাইব্যুনালের গেইটের বাইরে নিরাপত্তা কর্মীদের কক্ষে বসে থাকা ব্যক্তি নিজেকে মামলার পলাতক আসামি এ এফ এম ফয়জুল্লাহ বলে দাবী করেন। তিনি আজ আত্মসমর্পণ করতে চান। তবে তিনি আজ ট্রাইব্যুনালে ঢুকতে পারেননি। তার পক্ষে কোন আইনজীবীও ছিল না। রায়ের পরে তাকে শাহবাগ থানা পুলিশ হেফাজতে নেয়।

অন্যদিকে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ময়মনসিংহের গফরগাঁও ও ভালুকার ৮ ব্যক্তিকে আজ বিভিন্ন মেয়াদে সাজার রায় দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। এই রায়ে প্রথমবারের মতো খালাস পেয়েছেন এক আসামি।

বৃহস্পতিবার বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম, বিচারপতি আমির হোসেন ও বিচারপতি আবু আহমেদ জমাদারের সমন্বয়ে গঠিত ট্রাইব্যুনালের দেয়া রায়ে তিন আসামিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড, পাঁচ আসামিকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দেন।

রায়ে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন: এ এফ এম ফয়জুল্লাহ, মো. শামসুজ্জামান ওরফে আবুল কালাম ও আব্দুর রাজ্জাক মণ্ডল।

আর ২০ বছর করে কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন: মো.খলিলুর রহমান মীর, মো. আব্দুল্লাহ, মো. রইছ উদ্দিন আজাদী ওরফে আক্কেল আলী, সিরাজুল ইসলাম তোতা, আলিম উদ্দিন খান।

বিজ্ঞাপন

খালাস পেয়েছেন আব্দুল লতিফ। প্রায় ১১ বছর ধরে চলা আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের কোনো রায়ে তিনিই প্রথম কোনো ব্যক্তি, যিনি খালাস পেলেন।

আজ ট্রাইব্যুনালে প্রসিকিউশন পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান, জাহিদ ইমাম, তাপস কান্তি বল ও রেজিয়া সুলতানা চমন। আর আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আব্দুস সাত্তার পালোয়ান।

এর আগে ২০১৪ সালের ১৬ অক্টোবর এই মামলার তদন্ত শুরু হয়। এরপর তদন্তকারী কর্মকর্তার আবেদনে ট্রাইব্যুনাল ওই বছরের ২৫ অক্টোবর আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

পরবর্তীতে হত্যা, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও মুক্তিপণ আদায়ের অপরাধের অভিযোগ এনে ২০১৮ সালের ৪ মার্চ আসমিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু হয়।

এরপর সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ ও উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে গত বছরের ২৬ জানুয়ারি মামলাটি রায়ের অপেক্ষায় রাখার পর আজ রায় ঘোষণা করা হলো।

এই মামলায় মোট আসামি ছিলেন ১১ জন। পরে বিচার কাজ চলা অবস্থায় কারাগারে থাকা আসমি মো. আব্দুল মালেক আকন্দ ওরফে আবুল হোসেন ওরফে আবুল মেম্বার মারা যান। আর পলাতক অবস্থায় মারা যান আসামি নুরুল আমিন শাজাহান। বাকি ৯ আসামির মধ্যে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন মো.খলিলুর রহমান মীর, মো. শামসুজ্জামান ওরফে আবুল কালাম, মো. আব্দুল্লাহ, মো. রইছ উদ্দিন আজাদী ওরফে আক্কেল আলী ও আব্দুল লতিফ।

বাকি চার আসামি এ এফ এম ফয়জুল্লাহ, আব্দুর রাজ্জাক মণ্ডল, সিরাজুল ইসলাম তোতা ও আলিম উদ্দিন খান পলাতক।

বিজ্ঞাপন