চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দূতাবাসে আটক থাকাকালীন দুই সন্তানের পিতা হয়েছেন জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ

লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে আটক থাকাকালীন সময়ে দুই সন্তানের জনক হয়েছেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। সন্তানদের মা অ্যাসাঞ্জের আইনজীবী স্টেলা মরিস। সন্তানের নাম গ্যাব্রিয়েল এবং ম্যাক্স।

রোববার এএফপির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদনে বলা হয়, ৪৮ বয়সী অ্যাসাঞ্জ অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক।  তার দুই ছেলের জন্ম দিয়েছেন আফ্রিকায় জন্ম নেওয়া নারী আইনজীবী স্টেলা মরিস। ওই নারী জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের আইনজীবীদের একজন।

স্টেলা মরিস জানান, অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে প্রথমে তার প্রেম হয়।  পরে তারা বিয়ের পরিকল্পনা করেন।  ২০১৭ সালে তারা একে অপরের ঘনিষ্ঠ হন।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি তাদের সম্পর্ক ও সন্তানদের কথা প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নেন মরিস।  কারণ তিনি ভয় পাচ্ছেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বেলমার্শ কারাগারে অ্যাসাঞ্জের জীবন হুমকির মধ্যে রয়েছে।  মরিস চান, কোভিড-১৯ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কার পরিপ্রেক্ষিতে ব্রিটিশ সরকার অস্থায়ীভাবে যে কিছুসংখ্যক বন্দী মুক্তির যে পরিকল্পনা করেছে, অ্যাসাঞ্জ সেই সুবিধাটা পান।

অ্যাসাঞ্জ গত সপ্তাহে ভাইরাসে সংক্রমিত হতে পারেন এই যুক্তিতে জামিন প্রার্থনা করে প্রত্যাখ্যাত হয়েছেন।

ব্রিটিশ বিচারক তার মুক্তি প্রার্থনার কোনো ভিত্তি নেই বলে জানান।  তাৎক্ষণিক কোনো বক্তব্যের জন্য অ্যাসাঞ্জের আইনজীবীদের পাওয়া যায়নি। উইকিলিকস টুইটারে জবাব দেয়।

ওই টুইটার বার্তায় বলা হয়, জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের সদ্য আবির্ভূত সঙ্গী এবং তাঁদের দুই সন্তানের মা যুক্তরাজ্য সরকারের কাছে অ্যাসাঞ্জ ও ঝুঁকিতে থাকা বন্দীদের মুক্তি প্রার্থনা করছেন, যেহেতু কারাগারগুলোয় করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।

স্টেলা মরিসের দাবির পক্ষে সমর্থন দিয়ে উইকিলিকস এক টুইটে জানিয়েছে, জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের পার্টনার এবং দুই সন্তানের মা যুক্তরাজ্য সরকারকে অনুরোধ করেছেন, অ্যাসাঞ্জ এবং ঝুঁকিতে থাকা বন্দিদের করোনাভাইরাসের বিষয়টি বিবেচনা করে কারাগার থেকে ছেড়ে দিতে।