চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অারো সংক্ষিপ্ত রামপুরার উদ্ধার অভিযান

রামপুরা ঝিলপাড় ট্রাজেডির ঘটনার তৃতীয় দিনে কোনো নিখোঁজের তথ্য না পাওয়ায় উদ্ধার অভিযান সংক্ষিপ্ত করেছে ফায়ার সার্ভিস। পানির নিচে ডুবে যাওয়া প্রতিটি ঘরেই মরদেহের সন্ধানে অভিযান চালিয়েছে ডুবুরি দল।

ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা কোনো পরিবারের পক্ষ থেকে মুল্যবান আসবাবপত্র ও সরঞ্জাম উদ্ধারের অনুরোধ আসলে তা খুঁজছেন। এ বিষয়ে ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক নুরুল হক চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ‘আমরা আমাদের দল প্রস্তুত রেখেছি যখনই কোনো নিখোঁজের সন্ধান পাওয়া যাবে তখনই অভিযান চালানো হবে। তবে উদ্ধার অভিযানের তৃতীয় দিন নিখোঁজের আর কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।’

স্থানীয়দের মতে, দুর্ঘটনার সময় ঘরগুলোতে প্রায় ২০ থেকে ২২ জন মানুষ ছিল। সে হিসাবে পানির নিচে এখনও ৮ থেকে ১০ জনের লাশ থাকার কথা। ঘরগুলোতে বসবাসকারীদের বেশিরভাগই ছিলেন পোশাকশিল্প কর্মী।

রামপুরা ঝিলপাড়ের মতো ট্রাজেডি এড়াতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ও বাড়ি চিহ্নিত করার কাজ শুরু করার ঘোষণা দিয়েছে ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর। চিহ্নিত করার পরে ওইসব ভবন ও বাড়িতে উচ্ছেদের কাজ করবে সিটি কর্পোরেশন।

রামপুরা ঝিলপাড় এলাকায় নিহত এবং আহতদের পরিবারকে নগদ আর্থিক সহায়তা দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন।

বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে রাজধানীর রামপুরা বৌ বাজার ঝিলপাড়ে টিনের একটি দোতলা বাড়ি ধসে ১২ জন নিহত হয়। ধ্বংসস্তুপের নিচে আরো কেউ চাপা পড়ে আছে কি না তার সন্ধান করছিলেন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা।