চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘অযোগ্য’ আখ্যা দিয়ে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চাইলেন সাংসদ হারুন

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে দায়িত্ব পালনে নির্বাচন কমিশন ব্যর্থ হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির সাংসদ হারুনুর রশিদ। ব্যর্থতার জেরে এ সময় কমিশনকে ‘অযোগ্য’ ও ‘অপদার্থ’ বলে আখ্যা দেন তিনি।

সেই সঙ্গে প্রশ্ন তুলেছেন সিটি নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়েও। বলেছেন: যেখানে এক-তৃতীয়াংশ ভোটার উপস্থিত হলো না, এই নির্বাচনের কী কোনো গ্রহণযোগ্যতা আছে, মাননীয় স্পিকার?

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার একাদশ জাতীয় সংসদের ষষ্ঠ অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে তিনি এ দাবি উত্থাপন করেন।

সিটি নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ-০৩ সংসদীয় আসন থেকে নির্বাচিত এ সংসদ সদস্য বলেন: পহেলা ফেব্রুয়ারিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। এই নির্বাচনে নির্বাচন কমিশন যে ফল দিয়েছে, সেখানে দেখা যাচ্ছে; একটা সিটিতে মাত্র ২৪ শতাংশ আরেকটিতে ২৭ শতাংশ ভোট পড়েছে। যেখানে এক-তৃতীয়াংশ ভোটার উপস্থিত হলো না, এই নির্বাচনের কী কোনও গ্রহণযোগ্যতা আছে?

বিজ্ঞাপন

যে নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটার অংশ গ্রহণ করতে পারলো না, মতামত রায় প্রদান করতে পারলো না; সে নির্বাচনের (সিটি নির্বাচন) বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন হারুন। এরসময় একটি জাতীয় দৈনিকের উদ্ধৃতি টেনে,‘ইভিএমে ফল পরিবর্তন করা হয়েছে’-বলে দাবি করেন তিনি।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতা তুলে ধরে এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের পদত্যাগের দাবি করেন বিএনপির এ সাংসদ।

তার দাবির স্বপক্ষে অন্য নির্বাচন কমিশনের তুলনায় বর্তমান নির্বাচন কমিশনের সময়ে ভোট পড়ার হারের একটি তুলনামূলক চিত্র উপস্থাপনের চেষ্টা করেন হারুন। 

বলেন: বর্তমান সরকারের অধীনে এই নির্বাচন কমিশনের সময় ছাড়া অতীতে কোনও সময় স্থানীয় সরকার নির্বাচন, জাতীয় নির্বাচনে ৫০ ভাগের কম ভোটের নজির নেই মাননীয় স্পিকার। যে কারণে আমি মনে করি, সরকার এবং নির্বাচন কমিশন ভোটগ্রহণের ক্ষেত্রে টোটালি ব্যর্থ।

এসময় নির্বাচনকে ‘অযোগ্য’ ও ‘অপদার্থ’ দাবি করে কমিশনের দায়িত্ব থেকে সংশ্লিষ্ট সকলকে সরে গিয়ে উদ্ভুত পরিস্থিতি থেকে জনগণকে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানান বিরোধী দলের এ সাংসদ।