চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অতিথি হয়ে বনানীতে মিম

রুপালী পর্দার নিয়মিত মুখ লাক্সতারকা বিদ্যা সিনহা মিম। সর্বশেষ ‘সাপলুডু’ ছবি দিয়ে নজর কেড়েছেন। মুক্তির অপেক্ষায় আছে তার আরেক ছবি ‘পরাণ’। শুটিং ফ্লোরে অন্য ছবি ‘ইত্তেফাক’। মাঝেমধ্যে স্টেজ শো, নতুন শো-রুম উদ্ভোধনে দেখা যায় তাকে। সম্প্রতি তিনি অতিথি হয়েছিলেন অর্গানিক পণ্য সিনি কেয়ারের নতুন শো-রুমে। তার হাত ধরে বনানীর ১১ নম্বর সড়কে শুভ সূচনা হয় নতুন শো-রুমের।

উদ্বোধন শেষে মিম জানান, সিনি কেয়ারের সব ধরনের পণ্য ত্বকের জন্য উপযোগী। ক্ষতিকর না হওয়ার কারণে এর চাহিদা সারাবিশ্বে বাড়ছে। পণ্যটি ত্বকের জন্য সহনশীল এবং শতভাগ হালাল। তিনি বলেন, এর অনেকগুলো পণ্য আমি ব্যবহার করে দেখেছি বেশ উপকারী। ব্যবহারের পর ত্বকটা বেশ গ্লো করে। হেয়ার, সিরাম, স্ক্রিনক্রীমসহ বেশ কিছু মানসম্পন্ন পণ্য আছে তাদের। আরেকটি বিষয় বলবো এটা তিন দিনে রং ফর্সা করবে তা বলবো না। তবে এটা ব্যবহার করার পর অনেক যুগ উপযোগী মনে হয়েছে। আর এটা একটা অর্গানিক ও হালাল একটি পণ্য। তাই ব্যবহার করেও বেশ ভালো লেগেছে।

সিনি কেয়ার অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে ১৯৯৭ সালে যাত্রা শুরু করে। সারাবিশ্বে এর ২৫০টিরও বেশি আউটলেট আছে। অর্গানিক সব পণ্য নিয়ে গত বছরের নভেম্বরের ২৯ তারিখ সিনি কেয়ার বাংলাদেশ রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের এ ব্লকে যাত্রা শুরু করে। আর শুক্রবার সন্ধ্যায় বনানীর ১১ নম্বর সড়কে এর দ্বিতীয় আউটলেটের যাত্রা শুরু হলো।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সিনিকেয়ার অস্ট্রেলিয়ার এশিয়া জোনের কান্ট্রি ডিরেক্টর জাহিদ আহমেদ দিপু, সিনি কেয়ার বাংলাদেশের উপদেষ্টা সিইও রেদোয়ানুল ইসলাম, অপারেশন ম্যানেজার জাহিদুল ইসলাম, অনুষ্ঠানের অর্গানাইসার, বিউটি এক্সপার্ট ও জে.কে ফরেন ব্র্যান্ডের কর্ণধার মারিয়া মৃত্তিক, আন্তর্জাতিক সনদপ্রাপ্ত মেকআপ আর্টিস্ট সাহিদা আহসানসহ অনেকে।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে সিনিকেয়ার অস্ট্রেলিয়ার এশিয়া জোনের কান্ট্রি ডিরেক্টর জাহিদ আহমেদ দিপু বলেন, সাউথ এশিয়ান জোনে বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করেছে সিনি কেয়ার। যমুনার শোরুমের পর বনানীতে দ্বিতীয় আউটলেট উদ্বোধন হলো। বিউটি অলওয়েজ কামস ফর্ম ইনসাইড-এটা ফোকাস রেখে কাজ করছে সিনি কেয়ার।

কোনো ক্রিম ইউজ করার পর ১০-১৫ দিনের মধ্যে কাজ করা শুরু করবে এটা সিনি কেয়ারের বক্তব্য না। বরং সিনি কেয়ার পণ্য ব্যবহারের পর মানুষ যাতে একটু ব্যয়বহুল হলেও যেন আসল পণ্যটা ব্যবহার করে ত্বকের জন্য তাই চাই আমরা। ত্বক বুঝে সমাধান দিবে সিনি কেয়ার। বাংলাদেশে পণ্য প্রচারের আগে তিন বছর গবেষণা করেছে সিনি কেয়ার। বাংলাদেশের আবহাওয়া বুঝে, এ দেশের মানুষের ডিমান্ড বুঝে সে অনুযায়ি পণ্য আনা হয়েছে।

সিনি কেয়ার বাংলাদেশের সিইও রিদওয়ানুল ইসলাম বলেন, কোরিয়ান বা চায়না বেইজ পণ্যগুলো মানুষের ত্বকের জন্য ভালো কিছু না। শতভাগ হার্বাল পণ্য না। ত্বকের জন্য সিনিকেয়ার এমন মানসম্পন্ন পণ্য বাংলাদেশে এনেছে যা একদিনের মাথায় ত্বক ফর্সা না করে ধীরে ধীরে গ্লো করবে। সামনে সমগ্র বাংলাদেশে ৬৪ টি জেলাতে সিনি কেয়ারের বিপনন কেন্দ্র এবং স্কিনকেয়ার বিশেষজ্ঞ ও পরামর্শ কেন্দ্র স্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহন করেছে। তারই ধারাবাহিকতায়, আগামী ১৪ই ফেব্রুয়ারি রাজধানীর উওরায় সিনি কেয়ার তাদের প্রথম ফিটনেস সেন্টার ( সিনি কেয়ার ফিটনেস সেন্টার) উদ্বোধন করতে যাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন