চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

১ জুন থেকে ভার্চুয়াল আদালতের পরিধি বাড়ছে

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণজনিত উদ্ভুত পরিস্থিতিতে গত ১২ এপ্রিল থেকে সীমিত পরিসরে চলা ভার্চুয়াল আদালতের পরিধি ১ জুন থেকে বাড়ছে।

আগামিকাল থেকে সপ্তাহে ৫ দিন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ, ৩ দিন চেম্বার আদালত ও ২১ টি হাইকোর্ট বেঞ্চে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বিচার কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

প্রধান বিচারপতির অনুমোদনক্রমে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রেজিস্ট্রার মোঃ বদরুল আলম ভূঞা স্বাক্ষরিত এসংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামি ১ জুন থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত শুধু ভার্চুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন (১ নং) আপিল বেঞ্চে রবি থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা ৩০ থেকে (১১.৩০ হতে ১২.০০ পর্যন্ত বিরতিসহ) দুপুর ১.৩০ পর্যন্ত বিচার কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

বিজ্ঞাপন

এছাড়া আজ আরেক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী আগামি ১ জুন থেকে সপ্তাহের প্রতি রবিবার, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টা ৩০ থেকে শুধু ভার্চুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে আপীল বিভাগের চেম্বার কোর্টে শুনানী গ্রহণ করবেন।’

অন্যদিকে, আগামি ১ জুন থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত শুধু ভার্চুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে বিচারকার্য পরিচালনার জন্য ২১ টি হাইকোর্ট বেঞ্চ গঠন করে দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। ২১ টি বেঞ্চের মধ্যে ১৫ টি দ্বৈত বেঞ্চ এবং ৬ টি একক বেঞ্চ রয়েছে।

গত বছর দেশে করোনা সংক্রমণ ঝুঁকির প্রেক্ষাপটে আদালতগুলোতে টানা সাধারণ ছুটি চলার এক পর্যায়ে সুপ্রিম কোর্টের উভয় বিভাগের বিচারপতিদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত ‘ফুল কোর্ট সভা’ থেকে ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনা সংক্রান্ত অধ্যাদেশ জারির জন্য রাষ্ট্রপতিকে অনুরোধ জানানোর সিদ্ধান্ত হয়। পরবর্তীকালে ভার্চুয়াল উপস্থিতিকে স্বশরীরে আদালতে উপস্থিতি হিসেবে গণ্য করে অধ্যাদেশ জারি করেন রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। সে অধ্যাদেশ জারির পর গত বছরের ১১ মে থেকে দেশে ভার্চুয়াল আদালতের যাত্রা শুরু হয়। প্রথমে দেশের অধস্তন আদালত, এরপর হাইকোর্ট এবং পরবর্তীসময়ে সুপ্রিম কোর্টের চেম্বার আদালত ও আপিল বিভাগের বিচারিক কার্যক্রম চলতে থাকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে। এরপর ভার্চুয়ালের পাশাপাশি শারীরিক উপস্থিততে আদালতের কার্যক্রম চলে। পরে আবার দেশে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলে সব আদালতের কার্যক্রম ভার্চুয়াল মাধ্যমে শুরু হয়। একপর্যায়ে গত ১২ এপ্রিল থেকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ, চেম্বার আদালত এবং হাইকোর্ট বিভাগের বিচারিক কার্যক্রম সীমিত পরিসরে ভার্চুয়াল মাধ্যমে চলে। এসময় সপ্তাহে মাত্র ৩ দিন আপিল বিভাগ, ২ দিন চেম্বার আদালত এবং পর্যায়ক্রমে ১৬ টি হাইকোর্ট বেঞ্চে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

বিজ্ঞাপন