চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সোহেল রানা কীভাবে দেশত্যাগ করলেন, খতিয়ে দেখা হচ্ছে: আইজিপি

ই-অরেঞ্জের কথিত পৃষ্ঠপোষক বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা দেশ ত্যাগে কারও গাফিলতি আছে কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ।

রোববার (৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে পুলিশ সদর দপ্তরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পুলিশের কনস্টেবল হতে অতিরিক্ত আইজি পর্যন্ত প্রত্যেক পুলিশ সদস্যদের জন্য পদমর্যাদাভিত্তিক প্রশিক্ষণ কর্মসূচি উদ্বোধন উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, সরকারি চাকরির নির্ধারিত বিধান-শর্ত রয়েছে। কেউ সেসব শর্ত প্রতিপালনে ব্যর্থ হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার বিধান রয়েছে। তিনি কিছু করে থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে, ক্রিমিনাল অফেন্স হলেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তার প্রক্রিয়া দেখে স্পষ্ট যে, সে অনিয়মিত পথে দেশ ত্যাগ করেছেন।

‘ভারতের সঙ্গে আমাদের বন্দি বিনিময় চুক্তি রয়েছে। তাই সোহেল রানাকে ফিরিয়ে আনা সমস্যা হবে না। যেহেতু সোহেল ভারতে একটি মামলার আসামি, সেখানে ওই সরকারের সিদ্ধান্তের বিষয় রয়েছে। সেই প্রক্রিয়া শেষ হলে তাকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনা কষ্ট হবে না।’

আইজিপি ড. বেনজীর বলেন, পরিদর্শক সোহেল রানা কীভাবে দেশত্যাগ করলো, তার দেশত্যাগে কারও গাফিলতি ছিল কিনা সেসব বিষয়ে আজ সকালে ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে কথা বলেছি। এসব বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ভারতের সঙ্গে আমাদের বন্দি বিনিময় চুক্তি রয়েছে। তাই সোহেল রানাকে ফিরিয়ে আনা সমস্যা হবে না। যেহেতু সোহেল ভারতে একটি মামলার আসামি, সেই প্রক্রিয়া শেষ হলে অবশ্যই বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনা হবে। এটি স্পষ্ট যে সে অবৈধভাবে দেশ ত্যাগ করেছে।

অপহরণ, ছিনতাইয়ের মতো অপরাধে জড়িয়ে পড়া সদস্যদের বিষয়ে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, চাইলে আমরা এসব অপরাধীর বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে পারতাম। কিন্তু আমরা ফৌজদারি মামলা দিচ্ছি। আমরা ঘায়ে ব্যান্ডেজ না করে একেবারে ‘ক্লিন’ করছি।

বিজ্ঞাপন