চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সুশান্তের মৃত্যুর কারণ জানাবে ডায়েরির ছেঁড়া পাতাগুলো!

বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের রহস্যজনক মৃত্যুর শুরু থেকেই এটি আত্মহত্যা নাকি খুন সেটি নিয়ে বহুবার প্রশ্ন উঠেছে। তবে সম্প্রতি যেন সেই মৃত্যু তদন্তের রহস্য আরো বেশি ঘনীভূত হয়েছে। তাও আবার সেটি সুশান্তের ব্যবহৃত ডায়েরিকে কেন্দ্র করে।

সুশান্তের মৃত্যুর পর তার বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার করা হয় তার ব্যবহৃত একটি ডায়েরি। যেখানে তিনি লিখতেন তার মনের নানান কথা। ফলে ধারণা করা হয়েছিল তার মৃত্যুর কারণ উদঘাটন করতে অনেকাংশেই সাহায্য করতে পারে এই ডায়েরি। কিন্তু সেই ডায়েরিরই শেষের দিকের কয়েকটি পৃষ্টা ছেড়া পাওয়া গেছে। কিন্তু কেন এমনটা করা হয়েছে কিংবা কে ই বা এই কাজ করেছে তা নিয়ে এখন চলছে প্রশ্ন ছড়াছড়ি।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে সুশান্তের বাবার নিয়োগ করা আইনজীবী বিকাশ সিং জানান, আমার মতে ডায়েরিটি এই মৃত্যুর কারণ উদঘাটনে অনেক বড় একটা ভূমিকা রাখবে। যেহেতু তিনি রোজ তার মনের কথা গুলো ডায়েরিতে লিখে রাখতেন। সুতরাং, মৃত্যুর আগে নিশ্চয় সে বিষয়েও কিছু না কিছু তিনি অবশ্যই লিখেছিলেন। এছাড়াও তিনি আরো জানান, আমি আশা করি তদন্ত সংস্থা ডায়েরিটির শেষ কয়েকটি পৃষ্ঠা পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবে। কেননা এর মাধ্যমেই এই মৃত্যুর কারণ অনেকাংশেই বের করে ফেলতে পারবো।

এদিকে সুশান্তের বন্ধু সিদ্ধার্থ পিঠানির দাবি, সুশান্ত ডায়েরি লিখতেন ঠিকই কিন্তু লেখা পছন্দ না হলে নিজেই কোন কোন সময় পৃষ্ঠা ছিঁড়ে ফেলতেন। তাই ছেঁড়া ডায়েরিতে কোন রহস্য নেই বলে তিনি দাবি করেছেন। সেই সঙ্গে তার আরও দাবি, সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকে অনুরাগীরা অনেকেই তাকেও সন্দেহ করছেন। সেক্ষেত্রে যারা এমন দাবি করছেন তারা কি আদৌ সুশান্তের ভক্ত কিনা তা নিয়ে সন্ধিহান তিনি।

অপরদিকে সুশান্তের মৃত্যুর তদন্তে শুরু থেকে বেশ গাফেলতি করছেন মুম্বাই পুলিশ। এমনকি তাদের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা পেশ করেছে বিহার পুলিশ। তাদের আইনজীবী কেশব মোহন হলফনামায় উল্লেখ করেছেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট, ফরেনসিক রিপোর্ট, সিসিটিভি ফুটেজ দিতে অস্বীকার করেছে মুম্বাই পুলিশ। বারবার অনুরোধ করেও তাদের তরফ থেকে সহযোগিতা মেলেনি।