চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সিটি নির্বাচনের প্রচারণা শুরু

ওবায়দুল রশিদ: ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা সকাল থেকে শুরু হয়েছে । প্রার্থীদের নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে প্রচার প্রচারণা চালানোর আহ্বান জানিয়ে রিটার্নিং অফিসার বলেছেন, আচরণবিধি ভঙ্গ হলে কোন ছাড় দেয়া হবে না।

নির্বাচনী প্রচার শুরু হলে আচরণবিধি যাতে লঙ্ঘন না হয় সে জন্য ঢাকার দুই সিটিতে যে ৪ জন ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করছেন তাদের সংখ্যা আরো বাড়বে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তরের রিটার্নিং অফিসার মো. শাহ্ আলম।

নির্বাচন কমিশনের সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন আচরণ বিধিমালা অনুযায়ী ভোট গ্রহণের ২১ দিন আগে প্রার্থীরা কোনো নির্বাচনী প্রচার চালাতে পারবেন না।

নির্বাচনি প্রচার চালানোর ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম মেনে চলার বিষয়ে উল্লেখ রয়েছে বিধিতে। প্রচারের জন্য কোনো প্রার্থী পথসভা ও ঘরোয়া সভার বাইরে জনসভা ও শোভাযাত্রা করতে পারবেন না বলে উল্লেখ রয়েছে সেখানে। পথসভাও এমনভাবে করতে হবে যাতে যেন জণসাধারনের চলাচলে বাধা সৃষ্টি না হয়।

অন্য প্রার্থীর প্রচারাভিযানে বাধা প্রদান করা যাবে না বলেও উল্লেখ রয়েছে। যানবাহন নিয়ে মিছিল কিংবা মশাল মিছিল করতে পারবেন না কোনো প্রার্থী।

Advertisement

বিধিমালা অনুযায়ী, প্রার্থীর পোস্টার হতে হবে সাদা কালো এবং সেখানে কোনো রাজনৈতিক দল অথবা রাজনৈতিক ব্যক্তির নাম বা ছবি থাকতে পারবে না।

পোস্টার-লিফলেট দেয়ালে লাগানোর ব্যপারে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে তবে দড়ি দিয়ে টানানো ও বিলি করা যাবে । দেয়াল লিখন, তোরণ-ঘের-প্যান্ডেল নির্মাণ বা আলোকসজ্জা করতে পারবেন না কোনো প্রার্থী।

প্রতীক হিসেবে কোনো জীবন্ত প্রাণী ব্যবহার করা যাবে না বলেও উল্লেক রয়েছে। টাকা দেওয়া এবং উপঢৌকন বা খাবার পরিবেশনের ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

কোন প্রার্থীর পক্ষে জাতীয় সংসদের স্পিকার, ডেপুটি স্পিকার, চিফ হুইপ এবং সরকারের কোনো মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপ-মন্ত্রী বা তাদের সমপদমর্যাদাসম্পন্ন সরকারি সুবিধাপ্রাপ্ত কেউ নির্বচনী প্রচারে অংশ নিতে পারবেন না বলেও বিধিতে রয়েছে। 

ঢাকা উত্তরে মেয়র কিংবা সাধারণ বা সংরক্ষিত কাউন্সিলর কোনো প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেন নি বলে নিশ্চিত করেছেন মো. শাহ্ আলম।