চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সব আলো কেড়ে নিলেন আদর্শ গৌরব

গত দেড় বছর ধরে আলোচনার চর্চায় ছিল ‘দ্য হোয়াইট টাইগার’ সিনেমাটি। বহুল প্রতীক্ষার পর অবশেষে ২২ জানুয়ারি ওটিটি প্লাটফর্ম নেটফ্লিক্সে মুক্তি পায় ছবিটি।

আর মুক্তির পর থেকেই ব্যাপক প্রশংসায় ভাসছে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, রাজ কুমার রাও অভিনীত আলোচিত ‘হোয়াইট টাইগার’।

বিজ্ঞাপন

অরবিন্দ আদিগার লেখা বুকার প্রাইজ জয়ী উপন্যাসের উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছে এই ছবি। যেখানে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও রাজকুমার রাওয়ের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন আদর্শ গৌরব।

১ ঘণ্টা ২৫মিনিটের এই সিনেমাতে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আদর্শই রাজ করেছেন। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও রাজ কুমার কেবল তাকে সঙ্গ দিয়েছেন মাত্র।

তবে সিনেমাটির ক্যামেরা সামনে যারা কাজ করেছেন তাদের তুলনায় বাড়তি চ্যালেঞ্জ নিতে হয়েছিল ছবিটির পরিচালক  ইরানি বংশদ্ভূত মার্কিন পরিচালক রামিন বাহরানিকে।

কেননা খ্যাতি পাওয়া কোনো গল্প বা উপন্যাস অবলম্বনে সিনেমা নির্মাণের ক্ষেত্রে পাঠকের কল্পনায় আগে থেকে কিছু ইমেজ তৈরী হয়ে থাকে। সেই কল্পনার সূত্র ধরে পাঠক সিনেমার দৃশ্যগুলোও খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখেন। যা কঠিন কাজ হয়ে দাঁড়ায় পরিচালক এবং অভিনয় শিল্পীদের জন্য। কিন্তু এক্ষেত্রে বেশ উতরে গেছেন রামিন বাহরানি।

মূলত ভারতীয় সমাজের শ্রেণি বৈষম্যকে নিজের সিনেমায় তুলে ধরেছেন পরিচালক রামিন। যা নিয়েই ছিল নানান তর্ক-বিতর্ক। এমনকি বিষয়টিকে হাইকোর্ট অবদি নিয়ে যাওয়া হয়, যেন এর মুক্তি আকটে যায়। তবে শেষ মুহূর্তে আর কোন যুক্তি খাটলো না।

বলরামকে কেন্দ্র করেই এগিয়ে যায় ‘হোয়াইট টাইগার’ সিনেমার কাহিনি। যেখানে বলরামের জন্ম নিচু জাতের দরিদ্র পরিবারে। কিন্তু বুদ্ধি তার ক্ষুরধার। তার জোরেই নিজের ভাগ্য পাল্টাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু দারিদ্রের অভিশাপ কেড়ে নেয় তার পড়াশোনার অধিকার। তবু হাল ছাড়েনি বলরাম। চালাকির দ্বারাই কার্যসিদ্ধি করেন। জমিদারের ছেলে অশোকের (রাজকুমার রাও) ড্রাইভার হয়ে যান। অশোক ও তার স্ত্রী পিঙ্কির (প্রিয়াঙ্কা চোপড়া) সান্নিধ্যে আবার স্বপ্ন দেখতে শেখেন। এবার স্বপ্নপূরণে কোনও আপস করতে নারাজ বলরাম। সাদাবাঘের মতো নিজের অধিকার ছিনিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে ওঠে সে।