চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

শেখ হাসিনা ম্যামের চরিত্রের জন্য নার্ভাসনেস কেটে গেছে: হিমি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বায়োপিকে অন্যতম মূখ্য চরিত্র শেখ হাসিনার বড়বেলার চরিত্রে অভিনয় করবেন জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি। এ কাজে সুযোগ পাওয়ায় হিমি শুরুতে বিস্মিত হলেও বর্তমানে তার নার্ভাসনেস কেটে গেছে বলে জানান তিনি।

২৫ জানুয়ারি থেকে মুম্বাইতে ছবির শুটিং শুরু হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের যৌথ প্রযোজনার এ ছবিটি পরিচালনা করছেন শ্যাম বেনেগাল।

বিজ্ঞাপন

জান্নাতুল সুমাইয়া হিমির মতে, দেশে করোনা সংক্রমণ না এলে হয়তো এতদিন শুটিং সম্পন্ন হয়ে যেত। লম্বা সময় পেয়েছেন। তাই যতদূর সম্ভব নিজেকে প্রস্তুত করেছেন।

চ্যানেল আই অনলাইনকে হিমি বলেন, নিজে থেকে প্রচুর জানার চেষ্টা করছি। নিজ উদ্যোগে ওই সময়কার সাদাকালো ছবি খুঁজে পেয়েছি। তার গেটআপ তখন কেমন ছিল, সেটা বোঝার চেষ্টা করছি। পুরো চিত্রনাট্য পেয়ে হয়তো আরও বেশি জানা যেত। অফিশিয়ালি আমার অংশের শুটিং কবে থেকে শুরু হবে, জানতে পারলে হয়তো বেশি প্রস্তুতি নেয়া যেত। কিংবা শারীরিকভাবে যদি কোনো ট্রান্সফরমেশনের প্রয়োজন পড়ে তাও করা যাবে।

হিমি আরও বলেন, কত বছর বয়সে তার কী কী হয়েছে, এগুলো আমি ইন্টারনেটের সুবিধা নিয়ে জানার চেষ্টা করেছি। শেখ হাসিনা ম্যামের কাছ থেকে আমি তিনবার (২০১১-‘১৩) পুরস্কার নিয়েছি। তা ছিল শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের। প্রতিবার তার জন্মদিনে জাতীয়ভাবে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। আমি পরপর নাচ গান আবৃত্তিতে প্রথম হয়েছিলাম। শেষবার যখন ম্যামের কাছ থেকে পুরস্কার নিচ্ছিলাম, উনি নিজেই আমাকে বলেন, এই তুমি হিমি না? গতবছরেও পুরস্কার নিয়েছো! তখন আমি খুবই ছোট হলেও আকর্ষণ করেছিল। তখন থেকেই আমার ধারণা শিশু কিশোরদের বিষয়ে হাসিনা ম্যাম অনেক বেশি সেনসেটিভ। এখন সেই আমি তার চরিত্রে কাজ করতে যাচ্ছি, একদিকে যেমন উত্তেজনা কাজ করছে আবার ভয়ও পাচ্ছি। উনি অবশ্যই ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করবেন তার চরিত্রটি কিভাবে উপস্থাপন করছি। তবে বায়োপিকে কতটুকু দেখানো হবে সেটা আমি জানি না। করোনা আসার পর থেকে ছবি নির্মাণের সঙ্গে জড়িতদের আমার কথা হয়নি।

অডিশন দেবার স্মৃতি উল্লেখ করে হিমি বলেন, বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকে অভিনয় করতে অভিনয়শিল্পীরা যে অডিশন দিচ্ছিলেন, তা জানতামই না। আমি বিটিভিতে “তোমার নদীটি” শিরোনামের একটি নাটকের শুটিং করছিলাম। তখনই বিটিভির মাহবুবা ফেরদৌস আপা বললেন, হিমি, তুমি অডিশন দিয়ে দেখতে পারো। চলচ্চিত্রে অনেক বড় একটা কাজ হচ্ছে। যদি অডিশন দিয়ে নির্বাচিত হও, তাহলে তো ইতিহাসের অংশ হতে পারবে। এরপর অডিশনে অংশ নেই।

‘বিটিভিতে আমি শেষ মুহূর্তে অডিশন দিয়েছিলাম। শেখ হাসিনা ম্যামের চরিত্রের জন্য আমি অডিশন দিয়েছিলাম। পরিচালক স্যারও সেভাবেই আমাকে অভিনয় করতে বলেছিলেন। সংলাপ বলার ধরণ, চেহারার মিল এসব দেখেছেন। তবে আমার মনে হয়েছিল, আমি নির্বাচিত হব না। কারণ, বাঘা বাঘা শিল্পীরা যেখানে অডিশন দিয়েছেন। এসব দেখে আমি বেশি চুপসে যাই। পরে জানতে পারি আমি চূড়ান্ত হয়নি। আমার কস্টিউমের মাপ নেয়া হয়েছে। শেখ হাসিনা ম্যামের চরিত্রের জন্য নার্ভাসনেস কেটে গেছে। আমিও চাইছি কাজটি শুরু হোক। আশা করছি, শিগগির আমার কাজটি শুরু হবে।

বায়োপিক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ প্রযোজনার এই চলচ্চিত্রের জন্য প্রাথমিকভাবে ৩৫ কোটি টাকা বাজেট ধরা হয়েছে। এই বাজেটের ৬০ ভাগ দিচ্ছে বাংলাদেশ ও ৪০ ভাগ ভারত সরকার। বাংলা, উর্দু, হিন্দি ও ইংরেজি এই চারটি ভাষায় ডাব করা হবে ‘বঙ্গবন্ধু’র বায়োপিক। 

হিমির বর্তমান ব্যস্ততা নাটকে। খণ্ড নাটকের পাশাপাশি তিনটি ধারাবাহিক নাটকে তিনি কাজ করছেন। এর বাইরে চলচ্চিত্রেও কাজেরও কথা হয়েছে। হিমির মতে, সম্প্রতি কয়েকটি ছবি নিয়ে কথা হয়েছিল। কিন্তু সবদিক মেলেনি বলে করা হয়নি। শতভাগ কনফিডেন্ট না হলে কোনো কাজই তিনি করেন না। তবে আমি সবমাধ্যমে ভালো ভালো কাজগুলো তিনি করতে চান।