চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র: মিলার

রোহিঙ্গাদের মর্যাদার সাথে প্রত্যাবাসনের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা ও মানবিক সহায়তার মাধ্যমে বাংলাদেশের পাশে থাকার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলার।

গতকাল মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্ক এবং বিস্তৃত পরিসরের দ্বিপাক্ষিক বিষয়াদি নিয়ে আলোচনায় দেশের গণমাধ্যমের সম্পাদকদের সংগঠন ‘সম্পাদক পরিষদ’-এর নেতৃবৃন্দের সাথে ভার্চুয়াল এক বৈঠকে এসব কথা বলেন আর্ল মিলার।

বিজ্ঞাপন

বুধবার বিকালে ঢাকাস্থ আমেরিকান অ্যাম্বাসির জনসংযোগ বিভাগের প্রেস স্পেশালিস্ট রিকি সালমিনা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রাষ্ট্রদূত মিলার ২০২১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপনের প্রাক্কালে যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের সম্পর্কের শক্তিশালী দিকগুলো তুলে ধরে দুই দেশের অংশীদারিত্বের ইতিবাচক পথচলা আরো জোরদার ও বিস্তৃত হওয়ার বিষয়ে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বিজ্ঞাপন

রাষ্ট্রদূত মিলার তার বক্তব্যে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় অব্যাহতভাবে বাংলাদেশের পাশে থাকার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্য সম্প্রসারণ এবং পরিবেশবান্ধব জ্বালানি বা “ক্লিন এনার্জি” ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলাসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতির কথা পুনরায় উল্লেখ করেন।

এছাড়াও, তিনি বিশ্বের বৃহত্তম মানবিক সহায়তাকারী দেশ হিসেবে রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে রোহিঙ্গা শরনার্থীদের নিজ দেশে নিরাপদে, স্বেচ্ছায়, টেকসইভাবে ও মর্যাদার সাথে প্রত্যাবাসনের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা ও মানবিক সহায়তার মাধ্যমে বাংলাদেশের পাশে থাকার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।

রাষ্ট্রদূত মিলার চলমান মহামারি মোকাবেলায় জনগণের কাছে সঠিক ও নির্ভুল জীবন রক্ষাকারী তথ্য যথাসময়ে পৌঁছে দেয়া নিশ্চিত করতে অক্লান্ত পরিশ্রমের জন্য বাংলাদেশি সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, রাষ্ট্রদূত মিলারের সাথে সম্পাদক পরিষদের ভার্চুয়াল বৈঠক বাংলাদেশস্থ বিদেশী কূটনৈতিক মিশন ও বাংলাদেশে কর্মরত অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগীদের সাথে সম্পাদক পরিষদের সংলাপের নতুন উদ্যোগের অংশ।