চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Partex Cable

রুট-স্টোকসদের আরেকটি অসহায় আত্মসমর্পণ

Nagod
Bkash July

অ্যাশেজের শেষ টেস্টেও লড়াই জমাতে পারল না ইংলিশরা। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে প্রথম তিন টেস্টে হেরে সিরিজ খোয়ানোর পর চতুর্থ ম্যাচে কষ্টে ড্র, পঞ্চম টেস্টে আরেকবার অসহায় আত্মসমর্পণ।

Reneta June

সোমবার হোবার্ট টেস্টের তৃতীয় দিনে দ্রুত গুটিয়ে ইংলিশদের দুঃস্বপ্নের সমাপ্তি টানে অজি পেসাররা। ২৭০ রানের লক্ষ্যে দুর্দান্ত শুরুর পর ইংলিশরা থামে দেড়শর অনেক আগে। দুদিন হাতে রেখে স্বাগতিকরা জয় পায় ১৪৬ রানের।

৪-০ ব্যবধানে মর্যাদা রক্ষার অ্যাশেজ নিজেদের কাছে রেখে দিলো প্যাট কামিন্সের দল।

দিবারাত্রির টেস্টের প্রথমদিনে টস হেরে ব্যাটে নেমে বাজে শুরু করে অজিরা। মাঝের দিকে লাবুশেনের ৪৪ রান ও ট্রাভিস হেডের দুর্দান্ত শতকে বড় লক্ষ্যে এগোয় স্বাগতিকরা।

প্রথমদিনে এগিয়ে থাকা স্বাগতিকরা দ্বিতীয় দিনে ক্যামেরুন গ্রিনের ৭৪ রানে ভর করে পার করে তিনশ রান। ইংলিশদের হয়ে তিনটি করে উইকেট নেন স্টুয়ার্ট ব্রড ও মার্ক উড।

প্রথম ইনিংসে বড় সংগ্রহের পর তোপ দাগান দুই পেসার কামিন্স-স্টার্ক। তাদের আগুনে বোলিংয়ে দুইশর (১৮৮) আগেই গুটিয়ে যায় সফরকারীরা। মাত্র ৪৭.৪ ওভার ব্যাট করতে পারে ইংলিশরা।

প্রথম ইনিংসে ইংলিশদের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন আটে নামা ক্রিস ওকস। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৪ রান জো রুটের। মিচেল স্টার্ক ও প্যাট কামিন্স নেন যথাক্রমে তিনটি ও চারটি উইকেট।

অল্পতে গুটিয়ে শতাধিক রানের লিড নেয় অজিরা। বিকালে টার্গেট ছুঁড়তে নেমে হোঁচট খান ওয়ার্নার-খাজারা। পরের দিন আক্রমণ ধারাবাহিক রাখেন মার্ক উড। ইংলিশ পেসার ফেরান ছয় অজি ব্যাটারকে। তিনটি উইকেট নেন স্টুয়ার্ট ব্রুড।

১৫৫ রানে অলআউট হওয়া অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪৯ রান করেন অ্যালেক্স ক্যারি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৭ রান স্টিভেন স্মিথের। তৃতীয় দিনে দ্রুত অলআউট হলেও অস্ট্রেলিয়া লক্ষ্য দিতে পারে ২৭১ রানের।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে পথ হারায় সফরকারীরা, জয়ের যেন তর সইছিল না অজি পেসারদের। অধিনায়ক কামিন্সের আগুনে বোলিংয়ের পাশাপাশি আক্রমণ চালান স্টার্ক, বোলান্ড, ক্যামেরুন। স্টার্ক বাদে বাকি সবাই নেন তিনটি করে উইকেট।

অজি ডেরা থেকে ফেরার আগের ইনিংসে মাত্র ৩৮.৫ ওভার ব্যাট করতে পেরেছে ইংলিশরা। সফরকারীদের দ্বিতীয় ইনিংসে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন জ্যাক ক্রাউলি। বার্নস করেন ২৬ রান। অধিনায়ক রুট করেছেন ১১ রান। বাকিদের তিনজন পেরোতে পেরেছে দশের কোটা। অন্যরা ফোন নাম্বারের সংখ্যাতেই আটকে গেছেন।

ব্যাট হাতে দুর্দান্ত একটি সিরিজ পার করেছেন ট্রাভিস হেড। চার টেস্টে দুই শতক এক ফিফটিতে করেছেন ৩৫৭ রান। পেয়েছেন প্লেয়ার অব দ্য সিরিজের খেতাব। হোবার্ট টেস্টে প্রথম ইনিংসে শতক হাঁকানোয় হয়েছেন সেরা খেলোয়াড়।

BSH
Bellow Post-Green View