চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

রিফাত হত্যা: চার্জশিট আমলে নিয়ে পলাতক ৯ জনের নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

হাসান ঝন্টু: বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার চার্জশিট আমলে নিয়েছেন আদালত। শুনানি শেষে পুলিশের দেয়া চার্জশিট আদালত গ্রহণ করে পলাতক ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

বুধবার সকালে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জামিনে থাকা নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি ও ২৪ নম্বর আসামি আরিয়ান শ্রাবনসহ কারাগারে থাকা ৭ আসামিকে আদালতে আনা হয়। পরে আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী দুপুর ২টায় শুনানিতে ওই পরোয়ানা জারি করেন।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে এসংক্রান্ত একটি মামলার তারিখ আগামী ৯ অক্টোবর এবং আরেকটি মামলার (শিশু অপরাধী) তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর ধার্য করেছেন আদালত।

আসামি পক্ষের আইনজীবী এ্যাডভোকেট মাহবুবুল বারী আসলাম জানান: এ মামলায় ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে গত পহেলা সেপ্টেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো: হুমায়ূন কবির। যার মধ্যে আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ১৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। পরবর্তীতে আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি ও ২৪ নম্বর আসামি আরিয়ান শ্রাবন আদালত থেকে জামিন পায়। তবে চার্জশিটভুক্ত ৯ আসামি এখনও পলাতক রয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের মধ্যে ৭ জন বরগুনা জেলা কারাগারে এবং বাকি ৬ জন যশোর কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের মূল ফটকের পাশে রিফাতকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে কয়েকজন যুবক। সেসময় নানাভাবে নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করেও বাঁচতে পারেনি রিফাত।

হামলায় গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য রিফাতকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকেল ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

নিহত রিফাত বরগুনা সদর উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নের মাইঠা-লবণগোলা এলাকার দুলাল শরীফের ছেলে।

ওই ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। সেখানে দেখা যায় কয়েকজন যুবক রিফাতকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে একের পর আঘাত করছে। আর তাদের হাত থেকে স্বামীকে রক্ষার চেষ্টা করছেন রিফাতের স্ত্রী। তিনি চিৎকার করে সাহায্য চাচ্ছেন। কিন্তু কাউকে তাদেরকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি।

রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ১২ জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে আসামি করে তার বাবা বাদি হয়ে মামলা করেন।

নানা নাটকীয়তার পর ১৬ জুলাই এই ঘটনায় ‘সম্পৃক্ততা পাওয়ায়; রিফাতের স্ত্রী মিন্নিকেও গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারের পর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীও দেন তিনি। তবে মিন্নির পরিবারের দাবি, এই মামলায় প্রভাবশালীদের আড়াল করতেই তাকে ফাঁসানো হয়েছে।

Bellow Post-Green View