চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

এ আই রাজুর যে উদ্যোগে মুগ্ধ কলকাতার রূপম ইসলাম

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস উপলক্ষে এ আই রাজুর মিউজিক্যাল ড্রামা ‘সব্বাই সবার মতনই’

শুক্রবার (২ এপ্রিল) বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস। এ বিষয়ে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টি ও তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালন করা হচ্ছে।

এবারের বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবসের প্রতিপাদ্য ‘মহামারিত্তোর বিশ্বে ঝুঁকি প্রশমন, কর্মক্ষেত্রে সুযোগ হবে প্রসারণ’। এই বিষয়টিই মিউজিক্যাল ড্রামার মধ্য দিয়ে তুলে ধরার উদ্যোগ নিয়েছেন কণ্ঠশিল্পী এ আই রাজু।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

এরইমধ্যে এ আই রাজু প্রকাশ করেছেন ‘সব্বাই সবার মতনই’ নামে একটি মিউজিক্যাল ড্রামা। যেখানে অটিজম আক্রান্ত ব্যক্তিদের সমাজ ও কার্যক্ষেত্রে অন্তর্ভূক্তির বিষয়টি দারুণভাবে তুলে ধরা হয়েছে।

আর এমন উদ্যোগের সাথে থাকতে পেরে অকপটে নিজের মুগ্ধতার কথা জানিয়েছেন পশ্চিম বঙ্গের প্রখ্যাত রক ব্যান্ড ‘ফসিলস’ এর প্রধান গায়ক, শিল্পী, সুরকার, গীতিকার রূপম ইসলাম।

এ আই রাজুর ৬ মিনিট ব্যাপ্তীর মিউজিক্যাল ড্রামাটির রচয়িতা এবং সুরকারও রূপম ইসলাম। তাই গানটি প্রকাশের পর উচ্ছ্বসিত এই সংগীত ব্যক্তিত্ব।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রিয় বন্ধু রুথবা হাসানের আমন্ত্রণে গানটি তৈরি করবার দায়িত্ব পাই এআই রাজুর কণ্ঠের উপযোগী করে। রাজুর গান আগেই শুনবার সুযোগ হয়েছিল আমার বাড়িতে সে যখন এসেছিল এবং রাজুর বাড়িতে গিয়েও। বড় সুন্দর জুটি রাজু এবং রুথবা। ভবিষ্যতেও আমি রাজুর জন্য গান তৈরি করব।

বিজ্ঞাপন

গানটি হয়ে উঠা প্রসঙ্গে রূপম ইসলাম বলেন, বিশ্ব অটিজম দিবস বিষয়টি নিয়ে জনসচেতনতা তৈরির গান এটি। শিবাশীষ ব্যানার্জী সংগীত প্রযোজনা করেছেন। জন গিটার বাজিয়েছেন। প্রসেনজিৎ বাকি সব দায়িত্ব সামলেছেন অর্থাৎ মিক্সিং মাস্টারিং। রেকর্ডিং শুটিং সবই হয়েছে বাংলাদেশে। আমার পরিবারের সদস্য সামিক আরসি এবং প্রসেনজিৎ গীতিছবিটি চমৎকার তৈরি করেছেন এবং রূপসা দাশগুপ্ত। তিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন আন্তর্জাতিক এই যৌথ কাজের নেপথ্য সহায়তায়।

পরিশেষে এই রকস্টার বলেন, খুব ভাল লাগছে মাশরাফি বিন মোর্ত্তাজা এই কাজে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন বলে। সব বাঙালির মতো আমিও তাঁর ভক্ত— এ কথা বলবার অপেক্ষা রাখে না।

এমন সচেতনতামূলক গানটি নিয়ে এ আই রাজু বলেন, স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরে বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি লক্ষ্য করেছে। দেশে দারিদ্র্যের হার দ্রুতই নেমে আসছে, সেই সাথে উন্নত হচ্ছে অর্থনীতি এবং জীবনযাত্রার মান। দেশের বিশেষভাবে সক্ষম জনগোষ্ঠীর মানুষেরাও এখন দেশের মূল কার্যধারার অংশ হতে এগিয়ে আসছেন। সুতরাং তাদেরকে সঠিক পরিচর্যা ও ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ দান করা আমাদের দায়িত্ব।

তিনি বলেন, অটিজম আক্রান্ত ব্যক্তিদের কল্যাণে অধিক জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্য থেকে আমি এই মিউজিক্যাল ড্রামাটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেই। SWAC এবং বিউটিফুল মাইন্ড স্কুলের বিশেষ-চাহিদা সম্পন্ন শিক্ষার্থীগণ এই ড্রামাটিতে অভিনয় করেছেন। সুর আর গানের মধ্য দিয়ে এই ড্রামাটিতে আমরা এই বার্তাটিই পৌঁছে দিতে চেয়েছি যে, যথাযথ সহযোগীতা পেলে কারো জন্যই কোনো কাজ অসাধ্য থাকে না।

এই শিল্পী আরো বলেন, সংগীত এমন একটি মাধ্যম, যার আবেদন সকলের কাছেই সমান। আমরা আশা করছি এই মিউজিক্যাল ড্রামাটির মাধ্যমে আমরা প্রত্যেকের কাছে আমাদের বার্তাটি সমানভাবে পৌঁছে দিতে সক্ষম হব এবং বিশেষ-চাহিদা সম্পন্ন জনগোষ্ঠীর জন্য সহমর্মীতা গঠনে সফল হবো। ওরাও স্বপ্ন দেখে এবং ওদের স্বপ্নকে বাস্তব করতে আমাদের সহযোগিতা করা উচিত।

এই আয়োজনটিতে সহযোগী হিসেবে ছিল প্রেরণা ফাউন্ডেশন, ওয়ান কালচার ফাউন্ডেশন, সোশ্যাল মার্কেটিং কোম্পানি ( এসএমসি ), অটো ক্রপ কেয়ার, এবং হসপিটালিটি পার্টনার -দ্য ওয়েস্টিন ঢাকা। এ আই রাজুর ইউটিউব চ্যানেল ছাড়াও মিউজিক্যাল ড্রামাটি উপভোগ করা যাবে চ্যানেল আই-এর পর্দায়।

রূপম ইসলাম ও মাশরাফিকে ছাড়াও এআই রাজু বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানান জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও সমাজসেবী বিপাশা হায়াতের প্রতি।

বিজ্ঞাপন