চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ম্যান বুকার পেলেন অ্যাটউড ও এভারিস্তো

বিশ্ব সাহিত্যের অন্যতম মর্যাদাসম্পন্ন পুরস্কার ম্যান বুকার পুরস্কার পেলেন মার্গারেট অ্যাটউড এবং বার্নার্ডিন এভারিস্তো। 

তবে এবারের বুকারে অর্ধশতাব্দীর প্রথা ভেঙ্গে প্রথমবারের মতো এক কৃষ্ণাঙ্গের হাতে উঠলো ইংরেজি সাহিত্যের মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কারটি। ৬০ বছর বয়সী ব্রিটিশ লেখক বার্নার্ডিন এভারিস্তো তার ‘উইমেন’ বইয়ের জন্য এই পুরস্কার পান। তবে আরেকটি প্রথাও ভাঙতে হয়েছে কর্তৃপক্ষকে।

বিজ্ঞাপন

যৌথভাবে দু’জনকে পুরস্কার দিতে হয়েছে তাদের। কর্তৃপক্ষ জানায়, অনেক চেষ্টা করেও একজনকে বেছে নিতে পারেননি বিচারকরা। বার্নার্ডিনের সঙ্গে যৌথভাবে এই পুরস্কার কানাডিয়ান ঔপন্যাসিক মার্গারেট অটউড (৭৯)। তার উপন্যাসের নাম ‘দ্য হ্যান্ডমেইডস টেল’।

সোমবার লন্ডনের গিল্ডহলে তাদের নাম ঘোষণা করেন বিচারকরা। অ্যাটউড দ্য টেস্টামেন্টস এবং এভারিস্তো গার্ল ওমেন বইয়ের জন্য এই পুরস্কার পান তারা। পুরস্কারের অর্থ প্রায় ৬৩ হাজার মার্কিন ডলার।

বিজ্ঞাপন

জুরিবোর্ডের চেয়ারপারসন পিটার ফ্লোরেন্স বলেন, অসাধারণ কাজের জন্যই তাদের পুরস্কারটি প্রদান করা হচ্ছে।

১৯৬৯ সালে ম্যান বুকার পুরস্কার দেয়া শুরু হয়। বুকারের ইতিহাসে এটি মাত্র তৃতীয়বার যৌথভাবে পুরস্কার জেতার ঘটনা। ১৯৯৩ সালে নিয়ম করা হয়েছিল, এই পুরস্কার আর কখনোই ভাগাভাগি করে দেওয়া হবে না। তবে সেটা রক্ষা করতে পারেননি বিচারকরা।

বুকার প্রাইজ ফাউন্ডেশনের সাহিত্য বিষয়ক পরিচালক গ্যাবি উড বলেন, বুকারের বিচারকেরা টানা পাঁচ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে সংক্ষিপ্ত তালকায় থাকা জনপ্রিয় বইগুলো নিয়ে আলাপ-আলোচনা করে বুঝতে পারেন, এর মধ্য থেকে একজন বিজয়ী বের করা অসম্ভব।

বুকার পুরস্কারের ওয়েবসাইটের তথ্যমতে, এর আগে মাত্র দু’বার বুকার পুরস্কার ভাগাভাগির ঘটনা ঘটেছে। ১৯৭৪ সালে নাদিন গোরডাইমার ও স্ট্যানলি মিডলটন এবং ১৯৯২ সালে মাইকেল ওন্দাজে ও ব্যারি আন্সওর্থ যৌথভাবে এ পুরস্কার জেতেন।

চলতি বছর বুকার পুরস্কারের জন্য সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিল ছয়জনের নাম। বুকার পুরস্কারের সাহিত্য পরিচালক বিচারকদের বারবার অনুরোধ করেছিলেন যাতে যেকোনো একজনকে দেওয়া হয় ইংরেজি সাহিত্যের মর্যাদাপূর্ণ এ পুরস্কারটি। তবে বিচারকরা সে নিয়ম রক্ষা করতে পারেননি।

Bellow Post-Green View