চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ম্যানসিটির স্বপ্নভঙ্গ, ইউরোপ চ্যাম্পিয়ন চেলসি

পেপ গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটির প্রথম শিরোপার আশা গুঁড়িয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ট্রফি উঁচিয়ে ধরেছে টমাস টুখেলের চেলসি। ইউরোপ সেরার মঞ্চে অল-ইংলিশ লড়াইয়ের শেষে ব্লুজদের এটি দ্বিতীয় শিরোপা।

পোর্তোর এস্তাডিও ডে দ্রাগাও স্টেডিয়ামে শনিবার রাতের ফাইনালে ম্যানচেস্টার সিটিকে ১-০ গোলে হারিয়ে ইউরোপ সেরা প্রতিযোগিতায় নিজেদের দ্বিতীয় চ্যাম্পিয়ন হওয়া নিশ্চিত করে চেলসি।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

২০১২ সালে বায়ার্ন মিউনিখকে টাইব্রেকারে হারিয়ে প্রথমবার শিরোপার স্বাদ পেয়েছিল চেলসি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তিনবার ফাইনালে উঠে দুবারই ট্রফি নিয়ে ফিরল ব্লুজরা। ২০০৮ সালের ফাইনালে টাইব্রেকারেই তারা হেরেছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে।

বলের দখলে ম্যানসিটির পাল্লাই ছিল ভারি। কিন্তু সিটিজেনদের আক্রমণে সুবিধা করতে দেয়নি চেলসি। ম্যাচের ৪২ মিনিটে কাই হাভার্টজের গোল ভাগ্য গড়ে দেয় ট্রফির।

বিজ্ঞাপন

কাই হাভার্টজ

ম্যাচের অষ্টম মিনিটে রাহিম স্টার্লিংয়ের সুযোগ হাতছাড়ার মধ্য দিয়ে ম্যানসিটির হতাশার শুরু। পরের দশ মিনিটে তিন সুযোগ হেলায় ঠেলেন টিমো ওয়ের্নার। ২৭ মিনিটে ফোডেনের সামনে বাধা হন রুডিগার। ৩৬ মিনিটে শেষঅবধি নায়ক হাভার্টজকে হতাশ করেন জিনসেঙ্কো।

বিরতির আগে চোটের কারণে চেলসি হারায় ডিফেন্ডার থিয়াগো সিলভাকে। তার খানিক পরই ৪২ মিনিটে তাদের সেই গোল। নিজ গোলরক্ষকের থেকে বল পেয়ে, মাঝমাঠ থেকে থ্রু পাসে সেটি বাড়িয়েছিলেন ম্যাসন, যা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে হাভার্টজ এগোতে থাকেন সিটিজেন বক্সের দিকে, সিটি গোলরক্ষক এডেরসন চেষ্টা করেছিলেন যথাসাধ্য, জাল খুঁজে নিতে ভুল করেননি হাভার্টজ।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজের ২০তম ম্যাচে প্রথমবার জালের দেখা পেলেন জার্মান অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হাভার্টজ। সেই গোলটিই এখন ইতিহাস।

মধ্যবিরতির পর ম্যাচের ৫৬ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইনকে হারায় ম্যানসিটি, চোটে মাঠ ছাড়েন তিনি। বদলি হিসেবে গ্যাব্রিয়েল জেসাসকে পাঠান পেপ। ৭৩ মিনিটে চেলসির ক্রিস্টিয়ান পুলিসিচের চিপ জালের দেখা পায়নি। ৭৭ মিনিটে স্টার্লিংকে তুলে আগুয়েরোকে নামান গার্দিওলা। শেষদিকে সিটি কয়েকটি মরিয়া চেষ্টা চালিয়েছে। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।

বিজ্ঞাপন