চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মুঠোফোনে আসবে ভূমিধসের প্রাথমিক সতর্কতা বার্তা

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসেবে মুঠোফোনে ভূমিধসের প্রাথমিক সতর্কতা বার্তা ব্যবহার করা হবে।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও), সরকারী সংশ্লিষ্ট সংস্থার অংশীদারিত্বের সাথে কক্সবাজারের জন্য একটি নতুন প্রাথমিক সতর্কতা ব্যবস্থা তৈরি করেছে যা উপগ্রহের চিত্র, বৃষ্টিপাতের স্তর এবং অন্যান্য আবহাওয়া সম্পর্কিত তথ্যগুলির ইনপুটগুলি ব্যবহার করে ঝুঁকিপূর্ণ মডেলিংয়ের উপর ভিত্তি করে সম্পন্ন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার দুপুরে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) কক্সবাজারের জনসংযোগ কর্মকর্তা এমএইচ কাওসার রুদ্র স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বর্তমানে ভূমিধসের যে সতর্কতা রয়েছে তা কেবলমাত্র একটা অনুষ্ঠানের কয়েক ঘণ্টা আগে সংকেত দিবে, কিন্তু নতুন সিস্টেমটি বিপদগ্রস্ত অঞ্চলে বসবাসকারীদের ইমেল এবং মুঠোফোনের মাধ্যমে এসএমএস বার্তায় কমপক্ষে পাঁচ দিন আগে জানানো সম্ভব হবে।

ভূমিধসের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থীসহ প্রায় দশ লাখ মানুষের বসবাস।গত বিশ বছর ধরে দেশে ভূমিধসের সময় মে ও সেপ্টেম্বর মাসে। কারণ এ সময়ে দেশে বৃষ্টিপাত বেশি হয় এবং পাহাড়ি অঞ্চলে ভূমিধস হয়।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট ডি সিম্পসন বলেন, ‘আমরা জনগণের দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি কমাতে সরকারের সাথে কাজ করছি এবং আধুনিক প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে এই নতুন ভূমিধসের প্রাথমিক সতর্কতা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি, যা মানুষের জীবন রক্ষায় সহায়তা করবে।’

বিজ্ঞাপন

কক্সবাজার জেলা প্রশাসন এবং প্রকৃতি সংরক্ষণবিষয়ক বৈশ্বিক সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচারের (আইইউসিএন) সহযোগিতায় প্রাথমিক ইউএসএইডের তহবিলের আর্থিক সহায়তায় প্রাথমিক সতর্কতা ব্যবস্থাটি এফএও করেছিল।

এই অঞ্চলের সবচেয়ে দুর্বল সাইটগুলির মধ্যে ৮৯০টি শনাক্ত করতে উচ্চ রেজোলিউশন উপগ্রহ চিত্রগুলি বিশ্লেষণ করা হয়েছিল। তারপরে এই সাইটগুলি থেকে ক্ষেত্রের ডেটা সংগ্রহ করে এবং সিস্টেমটি বিকশিত করার জন্য স্থানীয় সরকার কর্মকর্তা এবং স্থানীয় নেতাদের সাথে কাজ করেছিল।

এফএও সারাদেশে প্রারম্ভিক সতর্কতা ব্যবস্থাটি বৃদ্ধির জন্য দুর্যোগ পরিচালনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সাথে কাজ করবে।

আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত ভূমিধস বিশেষজ্ঞ এফএও’র ডা. বায়েস আহমেদ প্রকল্পটিতে কাজ করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘এই ব্যবস্থাটি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাসের তথ্যের উপর ভিত্তি করে ভূমিধসের ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল এবং বৃষ্টিপাতের প্রান্তিক বিশ্লেষণ এবং ভূমিধসের বিস্তারিত বিশদ বিশ্লেষণ করে ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলের বাসিন্দাদের ই-মেইল বা ফোনের মাধ্যমে সতর্কতা জানান দেওয়া যায়।

সম্প্রতি এফএও এবং অংশীদাররা বিদ্যমান ভূমিধস প্রস্তুতি, প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনা, চ্যালেঞ্জ এবং সাংগঠনিক দায়িত্ব নিয়ে আলোচনা করার জন্য একটি স্টেকহোল্ডার কর্মশালা করেছে।

কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় এফএওর সাব অফিসের প্রধান মার্কো দেগেটানো, আইইউসিএন বাংলাদেশের দেশের প্রতিনিধি রকিবুল আমিন এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের পরিবেশ অধিদফতরের পরিকল্পনা পরিচালক মো. সোলাইমান হায়দারসহ সেনা কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালার অনুসন্ধানগুলি কয়েক মাসের মধ্যে নতুন সতর্কতা ব্যবস্থা কার্যকর হওয়ার আগে একটি তিন-স্তরের স্বল্প, মাঝারি এবং দীর্ঘমেয়াদী কর্ম পরিকল্পনা প্রস্তুত করতে ব্যবহৃত হবে।