চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘মীরাক্কেল’-এর বিচারক থেকে বাদ শ্রীলেখা

ভারতীয় বাংলা টেলিভিশন চ্যানেলের অন্যতম জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘মীরাক্কেল’-এ আর বিচারক হিসেবে দেখা যাবে না অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্রকে! চ্যানেল কর্তৃপক্ষই নাকি এই শোতে আর তাকে চাইছেন না! এরইমধ্যে তার জায়গায় খোঁজা হচ্ছে বিকল্প।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘মীরাক্কেল’ এর আসন্ন সিজন থেকে শ্রীলেখা মিত্রকে দেখা যাবে না। তাকে বাদ দেয়া হয়েছে। তার বিকল্প হিসেবে সামনে আসছে স্বস্তিকা মুখার্জী, পাওলি দাম ও নুসরাত জাহানের নাম!

বিজ্ঞাপন

‘মীরাক্কেল’ এর সঙ্গে বিচারক হিসেবে ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, রজতাভ দত্ত ও শ্রীলেখা মিত্রের নাম। হঠাৎ তাকে কেন বাদ দেয়া? কর্তৃপক্ষ এমন প্রশ্নের কোনো উত্তর না দিলেও গেল সোমবার রাতে আচমকাই বোমা ফাটান শ্রীলেখা। ফেসবুকে লেখেন, সবচেয়ে জনপ্রিয় কমেডি শো শুরু হতে চলেছে আমাকে ছাড়া। সত্যি কথা বলবার এই মূল্যটাই দিতে হয় আমাকে, ব্র্যান্ডের প্রতি একনিষ্ঠ থাকা কিংবা সিস্টেমের সব অংশগুলোতে তেল না দেওয়ার (আপনারা বুঝে নিন) চরম মূল্য। ধন্যবাদ সংশ্লিষ্ট চ্যানেল কর্তৃপক্ষকে। আপনি ঠিক বলেছেন মহিলা (স্বস্তিকাকে উদ্দেশ করে), আমি নিজের খামতি গুলোকে মেনে নিচ্ছি। আমাকে যারা অপছন্দ করেন তারা পার্টি করতে পারেন’।

শ্রীলেখার এমন মন্তব্যের পর ‘মীরাক্কেল’ নিয়ে অসন্তুষ প্রকাশ করেছেন তার বহু ভক্ত অনুরাগী। প্রিয় অভিনেত্রীকে এমন অনুষ্ঠান থেকে বাদ দেয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন কেউ কেউ।


মূলত কেন ‘মীরাক্কেল’ থেকে বাদ পড়লেন শ্রীলেখা? এর স্পষ্ট উত্তর কারো কাছে না থাকলেও ধারণা করা হচ্ছে কিছুদিন আগেই টলিউডে ‘স্বজনপোষণ’ নিয়ে কথা বলে সংবাদ শিরোনামে এসেছিলেন শ্রীলেখা। প্রকাশ্যে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় ও ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের নাম উল্লেখ করে তিনি বলেন ‘ঋতু-বুম্বার প্রেম ছিল বলে নায়িকার চরিত্রে কাজ পাইনি’। শ্রীলেখার এই অভিযোগের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গেও ঠাণ্ডা লড়াই দেখা গিয়েছিল শ্রীলেখার। নাম না নিয়েই স্বস্তিকা পাল্টা উত্তরে বলেছিলেন ‘নিজের খামতি ঢাকতে এভাবে স্লাটশেমিং করে অন্য অভিনেত্রীদের অপমান করার কোনও অর্থ নেই।’-স্বস্তিকার ইঙ্গিত যে শ্রীলেখার দিকেই ছিল তা বুঝতে কারুর অসুবিধা হয়নি।


পরবর্তীতে আরো একটি স্ট্যাটাসে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করে শ্রীলেখা বলেন, এগুলোই প্রমাণ করে দেয় স্বজনপোষণ কেমন রন্ধ্রে রন্ধ্রে রয়েছে এবং আমি সঠিক কথাই বলেছিলাম। এটা আমার সঙ্গে ঘটা কোনও নতুন ঘটনা নয়, বরং অন্যকিছু হলেই আমি বেশি চমকে যেতাম। এবং হ্যাঁ মহিলা (স্বস্তিকাকে উদ্দেশ করে) তোমার ‘ছোট্ট প্রশ্ন’-এর জবাব যেটা সেইসময় আমি এড়িয়ে গিয়েছিলাম। তুমি একদম সঠিক, আমার খামতি প্রসঙ্গে। সেটা আপাতত আমার সামনে একদম স্পষ্ট এবং কোনওভাবেই এড়িয়ে যাওয়া সম্ভবপর নয়। আমি নম্রতার সঙ্গে সেটা মেনে নিচ্ছি। আমি সিস্টেমের সঙ্গে লড়াই করে ব্যর্থ হতে পারি তবে মাথানত করব না।