চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভারতের বিভিন্ন শহরে সেরামের ভ্যাকসিন

সেরাম ইন্সটিটিউটের বানানো করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন কোভিশিল্ডের প্রথম ব্যাচ পুনে থেকে দিল্লি এবং আরো ১২টি শহরে পৌঁছুতে শুরু করেছে।

৪ দিন পর ১৬ জানুয়ারি থেকে ভারতব্যাপি শুরু হবে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার তিনটি তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রক ট্রাক সেরাম ইন্সটিটিউট বেড়িয়ে যায় ভোর ৫টার আগেই।  ওই সব ট্রাকে করে ৪৭৮ বক্স ভ্যাকসিন পাঠানো হয়েছে। প্রতিটি বক্সের ওজন ৩২ কেজি।

নামপ্রকাশ না করে একজন কর্মকর্তা পিটিআইকে জানিয়েছে, ওই যানগুলো পুনে বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওনা হওয়ার আগে পূজা অনুষ্ঠিত হয়। রীতি অনুসারে সেখানে নারকেলও ভাঙা হয়।

পুনে বিমানবন্দর এক টুইটে লিখেছে, ‘রেডি সেট গো। অপেক্ষা করো ইন্ডিয়া। রোগটিকে মারার জন্য ভ্যাকসিন এখন সারাদেশে বিতরণের জন্য বিমানে তোলা হচ্ছে।’

বিজ্ঞাপন

বিমানমন্ত্রী হারদ্বীপ সিং পুরি টুইটে লিখেছেন, বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ মিশন শুরু করলো। স্পাইসজেট ও গোএয়ারের দুটি ফ্লাইট ছেড়েছে দিল্লি ও চেন্নাইয়ের উদ্দেশে।

তিনি আরেক টুইটে জানান, ‘আজই এয়ার ইন্ডিয়া, স্পাইসজেট এবং ইন্ডিগো এয়ারলাইন্সের ৯টি ফ্লাইটে ৫৬.৫ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন পুনে থেকে দিল্লি, চেন্নাই, কোলকাতা, গোয়াহাটি, শিলং, আহমেদাবাদ, হায়দ্রাবাদ, বিজয়াবদা, ভুবনেশ্বর, পাটনা, ব্যাঙ্গালুরু, লখনৌ ও চন্ডীগড়ে পাঠানো শুরু হয়েছে।’

স্পাইসজেটও এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তারা ভারতের ভেতরে ও বাইরে ভ্যাকসিন বিতরণ কাজের জন্য নিবেদিত ও প্রস্তুত।

ভারতের সরকার ১ কোটি ১ লাখ ডোজ কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের অর্ডার দিয়েছে। এপ্রিলের মধ্যে তারা ৫ কোটি ৬০ লাখ ডোজ কিনতে চায়, ডোজপ্রতি ২০০ রুপি মূল্যে।

আসছে ১৬ জানুয়ারি থেকে ভারতে ভ্যাকসিন বিতরণ শুরু হবে। প্রথম দফায় স্বাস্থ্যকর্মী, সম্মুখসারীর যোদ্ধা, নাগরিক প্রতিরক্ষা কর্মী এবং স্যানিটেশন কর্মীরা ভ্যাকসিন পাবে।  তারপরে পাবে যারা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে তারা, ৫০ বছরের বেশি বয়সীরা এবং রোগব্যাধি যেমন ডায়াবেটিস বা হাইপারটেনশনে ভুগছেন তারা।

ভারতে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ১ কোটি ৪ লাখের বেশি আর প্রাণ হারিয়েছে ১ লাখ ৫১ হাজারের বেশি মানুষ।