চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিনোদিনীর মত চরিত্রে আগে কখনো অভিনয় করিনি: পাওলি দাম

আনুশকা শর্মা প্রযোজিত ওয়েব সিরিজ ‘পাতাল লোক’র ব্যাপক সাফল্যের পর তার প্রযোজিত সিনেমা ‘বুলবুল’ গত ২৪ জুন ছবিটি মুক্তি পেয়েছে নেটফ্লিক্সে। আর মুক্তির পর থেকে ছবিটির প্রতিটি চরিত্রই ব্যাপক প্রশংসা কুড়াচ্ছেন। ছবির নাম ভূমিকা বুলবুল চরিত্রে অভিনয় করেছেন তৃপ্তি দিমরির মতো তারকা, আর ছবির বিনোদিনী চরিত্রে অভিনয় করে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছেন বাঙালি অভিনেত্রী পাওলি দাম।

বিনোদিনী চরিত্রটি সম্পর্কে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে পাওলি জানিয়েছেন, ‘বিনোদিনী চরিত্রটিতে সম্পর্কে আমাকে যখন বলা হয়েছিল, আমি তখন থেকেই চরিত্রটি নিয়ে খুব উত্তেজিত ছিলাম। কারণ এ ধরণের চরিত্রে আমি আগে কখনো অভিনয় করিনি। ফলে প্রথম দিকে এই চরিত্রটি কীভাবে ফুটিয়ে তুলব তা নিয়ে বেশ দ্বিধাতেই ছিলাম। কিন্তু পরে আমি বুঝতে পেরেছি যে, আসলে ছবিতে বিনোদিনী একটি দুঃখী চরিত্র।’

বিজ্ঞাপন

সিনেমায় তার অভিনীত ওই চরিত্র সর্ম্পকে পাওলি বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই তাকে বোঝানো হয়েছিল যে, কোন প্রশ্ন না করে শুধু বিশ্বাসে ভর করে সকলের কথা মেনে চলো। যেহেতু জমিদার বাড়িতে বিনোদিনী বড় বউ ছিলো না, তাই তার ক্ষমতাও সীমিত। একথাও বোঝানো হয়েছিল তাকে।’

৩৯ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী মনে করেন, বিনোদিনী চরিত্রটি সমাজের সমস্ত মহিলার প্রতিনিধিত্ব করে, যারা পিতৃতন্ত্রের কাছে প্রতিদিন মাথা নত করে সব সহ্য করছে।

‘বুলবুল’ মূলত ১৮৮১-এর বাংলাকে প্রেক্ষাপট হিসেবে তৈরি করা বাল্যবিবাহ, জমিদার প্রথা ও রাজবাড়ির অন্দরমহলের গল্প নিয়ে তৈরি একটি সামাজিক ছবি। তবে এর বাহিরেও যে ছবিটির কাহিনীতে আরো রহস্য রয়েছে তার ধারণা দর্শক আগেই পেয়েছেন ছবির ট্রেলার থেকে।

অনভিতা দত্ত পরিচালিত ‘বুলবুল’ ছবিটির মূল ভূমিকায় তৃপ্তি দিমরি ও পাওলি দাম ছাড়াও আরো অভিনয় করেছেন অবিনাশ তিওয়ারি, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় ও রাহুল বোস।