চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

প্রথম করোনা টিকা নেওয়ার পর যে প্রশ্ন

বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে গণহারে করোনা টিকার প্রয়োগ শুরু হয়েছে যুক্তরাজ্যে। ফাইজার ও বায়োএনটেকের তৈরি এ টিকা প্রাথমিকভাবে দেশটির ৫০টি হাসপাতালে দেওয়া হচ্ছে।

প্রাথমিকভাবে ৮০ বছরের বয়স্ক লোক, ফ্রন্টলাইনার বা স্বাস্থ্যকর্মী, নার্স ও ক্রমান্বয়ে সাধারণের মাঝে টিকা কর্মসূচি শুরু করবে।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার প্রথম টিকা গ্রহণ করেছেন ৯০ বছর বয়সী এক নারী। যদিও তিনি  টিকা গ্রহণের পর ভালো অনুভব করছেন বলে জানিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

তাকে প্রশ্ন করা হয়, প্রথম একবার করোনা টিকা গ্রহণ করেছেন, এখন কী আপনি করোনা থেকে নিরাপদ?

যুক্তরাষ্ট্রের ফাইজার ও জার্মানির বায়োনএটেক যৌথভাবে এই টিকা তৈরি করেছে। এই টিকা সম্পূর্ণ ভিন্নধর্মী করোনাভাইরাস জিনোটিক কোড ব্যবহার করে আরএনএ নামের এক যাতীয় প্রযুক্তির দ্বারা বাহুতে ইনজেক্ট করা হয়ে থাকে। দুই ধাপে এ টিকা তিন সপ্তাহের ব্যবধানে একবার দিতে হয়। এটি স্বাস্থ্যবান মানুষের মধ্যে রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে তোলে। তবে বেশি মাত্রায় দেওয়া হলে জ্বরসহ অন্যান্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার সময় পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বেশি দেখা দেয়। ৩.৮ শতাংশে ক্লান্তি ও ২ শতাংশের মাথা ব্যথা অনুভূত হতে পারে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই টিকা প্রয়োগের পর কতোটা সুরক্ষা দেবে তা জানার জন্য আরও সময় লাগবে। জনস হপকিন্স ব্লুমবার্গ স্কুল অব পাবলিক হেলথের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডা. অনিতা শেট বলেন যে, টিকা চলাকালনি সময় লোকের ভিড় ও জমায়েত এড়ানো ভালো।

এনডিটিভি বলছে, যেহেতু টিকা দেওয়ার পরও যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণরোধ করে এমন কোনো নিশ্চয়তা ১০০ শতাংশ নেই, তাই বিজ্ঞানীরা বলছেন টিকা দিলেও মাস্ক পরা, নিয়মিত হাত ধোয়া ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। সুরক্ষা নিশ্চিত হওয়ার জন্য আরও অপেক্ষা করতে হবে বলছেন তারা।