চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

না পাওয়ার সীমানায় এন্ড্রু কিশোর, তারকাদের শ্রদ্ধা

সংগীতের কিংবদন্তীর মৃত্যুতে সোশ্যাল মিডিয়ায় শোক প্রকাশ করেছেন তারকারাও

দেশ বরেণ্য কণ্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে সর্বত্র। অগণিত মানুষের শ্রদ্ধায় ও শোকে ভরে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়া। সংগীতের এই কিংবদন্তীর মৃত্যুতে সোশ্যাল মিডিয়ায় শোক প্রকাশ করেছেন তারকারাও।

কুমার বিশ্বজিৎ লিখেছেন, ‘এন্ড্রু কিশোরের মতো ক্ষণজন্মা শিল্পী যুগে যুগে আসে না l তাঁর চলে যাওয়ায় আমাদের সংগীতাঙ্গনের যে ক্ষতি হয়েছে তা কোনদিনও পূরণ হওয়ার নয়। শুধু সহযাত্রীই নয়, বরং হারালাম আমার একজন ভাই যিনি আমাকে শাসন করেছেন যেমনটি, তেমনি আদরও। এই শোক সত্যি সত্যিই অসহনীয়। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করি এবং পরিবারের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করছি।’

বিজ্ঞাপন

এন্ড্রু কিশোরকে স্মরণ করে চিত্রনায়ক রিয়াজ বলেন, ‘বাংলাদেশের সিনেমার তথা সংগীতের ইতিহাসে এতো হিট সম্ভবত আর কারো ঝুলিতে নেই। আশির দশক থেকে শুরু করে বর্তমান সময় পর্যন্ত যত প্রবাদতুল্য গানের কথা আমাদের মনে পরে তার নব্বই ভাগই সম্ভবত স্বর্গীয় এন্ড্রু কিশোর দা’র গাওয়া। বড় ভালো লোক ছিলেন। দেশে বিদেশে একসাথে অনেক শো’তে অংশগ্রহণ করেছি, বড়ই মজার মানুষ ছিলেন। কিন্তু কোনদিনও তাকে প্রকাশ্যে কিংবা ব্যক্তিগতভাবে কারো নামে মন্দ কিছু বলতে শুনিনি। এমন মানুষ পাওয়া আসলেই দুষ্কর। আমার জন্য তিনি গেয়েছেন অসংখ্য গান। ‘পড়ে না চোখের পলক’ গানটি আমার জীবনের একটি মাইলফলক, কিন্তু এই মুহূর্তে ভাবতেই আমার ভেতরটা কেমন যেন মোচড় দিয়ে উঠছে যে এই গানের গায়ক এন্ড্রু দা আর আমাদের মাঝে নেই

কনকচাঁপা লিখেছেন, “বাংলাদেশের একজনই ‘এন্ড্রু কিশোর’। তিনি ছিলেন আছেন থাকবেন তাঁর কর্মের মাঝে। হে গুণী, আপনার জন্য রইলো আমার আজীবনের শ্রদ্ধা।”

এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে শোকে মুহ্যমান দেশের জনপ্রিয় নায়ক শাকিব খান। মৃত্যুর খবর শোনার পর চ্যানেল আই অনলাইনকে শাকিব খান বলেন, ‘এন্ড্রু কিশোরের চলে যাওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশের সংগীত একজন লিজেন্ডকে হারালো। এই ক্ষতি কখনো পূরণ হওয়ার নয়। আমার ছবির অগণিত জনপ্রিয় গান তার কণ্ঠ থেকে এসেছে। শুধু আমার ছবি নয়, অসংখ্য সুপার ডুপার হিট গান আমরা তাঁর কাছ থেকে পেয়েছি যা বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের গান তথা গোটা সংগীত ভুবনকে সমৃদ্ধ করেছে।

শাকিব আরো বলেন, সিনেমায় আসার আগেই এন্ড্রু দা ছিলেন আমার প্রিয় শিল্পী। তাঁর কত গান গুনগুন করে গেয়েছি ঠিক নেই। সিনেমায় আসার পর থেকেই তাঁকে আমি পাশে পেয়েছি। আমার সঙ্গে তার অত্যন্ত চমৎকার সুসম্পর্ক ছিল।

‘হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস’ গানটি শেয়ার করে নির্মাতা মোস্তফা সরোয়ার ফারুকী লিখেছেন, ‘বিদায়, এন্ড্রু দা….।’

ফকির আলমগীর লিখেছেন, ‘অবশেষে মরণ ব্যাধি ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে, না ফেরার দেশে পাড়ি জমালেন আধুনিক বাংলা গানের কিংবদন্তী শিল্পী এন্ড্রু কিশোর। তার মৃত্যুতে উপমহাদেশে সংগীত ভুবনে যে শুন্যতার সৃষ্টি হল যা সহজে পূরণ হবার নয়। আমি তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি।’

বাপ্পা মজুমদার লিখেছেন, ‘বিদায় এন্ড্রু দা…! বিদায় হে মহারাজ…!’

জয়া আহসান লিখেছেন, ‘এন্ড্রু কিশোর আমাদের দেশের সংগীত জগতের একটি অধ্যায়ের নাম। তাঁর হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস, ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে, জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, আমার বুকের মধ্যেখানে, ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা, সবাই তো ভালোবাসা চায় প্রভৃতি গান আমাদের মনে গেঁথে থাকবে চিরদিন। যে শিল্পী ৮ বার জাতীয় পুরস্কারের সম্মানে ভূষিত তাঁকে নিয়ে যাই লিখবো তাই কম মনে হবে। শুধু এটুকুই বলতে পারি আমরা আজীবন আপনার অবদানের জন্য ঋণী হয়ে থাকবো। আপনি বেঁচে থাকবেন আপনার কাজে, আপনার গানে, আপনার সুরে এই দেশের সকল মানুষের মধ্যে।’

এন্ড্রু কিশোরের ছবির শেয়ার করে চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস লিখেছেন, ‘রেস্ট ইন পিস।’

চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা লিখেছেন, ‘বিনম্র শ্রদ্ধা এন্ড্রু কিশোর দাদা।’

এন্ড্রু কিশোরের সঙ্গে একটি ছবি শেয়ার করে চিত্রনায়ক ও শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ লিখেন: ওরে এইনা ভুবন ছাড়তে হবে। দুদিন আগে পরে। তবু একই সাথে রেখো আমায় একই মাটির ঘরে। আমি ওইনা ঘরে থাকতে একা পারবোনাকো পারবোনা। ভালো থাকবেন ওপারে প্রিয় শিল্পী। এন্ড্রু কিশোর। কি যে হারালাম।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন এন্ড্রু কিশোর। শরীরে নানা ধরনের জটিলতা নিয়ে এন্ড্রু কিশোর অসুস্থ অবস্থায় গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে দেশ ছেড়েছিলেন। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গত ১৮ সেপ্টেম্বর তাঁর শরীরে নন-হজকিন লিম্ফোমা নামের ব্লাড ক্যানসার ধরা পড়ে।