চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

তুরস্কের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে স্থাপিত হবে বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ ভাস্কর্য

তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারার বঙ্গবন্ধু ব্যুলভার্ড নামে গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়কে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি আবক্ষ ভাস্কর্য খুব শিগগিরই স্থাপন করা হবে।

গত ২০ মে আঙ্কারায় অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ও তুরস্কের পররাষ্ট্র দপ্তরের তৃতীয় পরামর্শ সভায় এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

বিজ্ঞাপন

অপরদিকে রাজধানীর বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউয়ে তুরস্কের জাতির পিতা মোস্তফা কামাল আতাতুর্কেরও একটি আবক্ষ ভাস্কর্য স্থাপন করবে তুরস্ক।

সভায় পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের এবং তুরস্কের পররাষ্ট্র উপমন্ত্রী সিদাত ওনাল তার দেশের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন।

তুরস্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম. আল্লামা সিদ্দীকী, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিবৃন্দ, আঙ্কারাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস ও ইস্তান্বুলস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেলে’র কর্মকর্তাবৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

আন্তরিক পরিবেশে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বাংলাদেশ-তুরস্কের মধ্যে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ব্যাপারে উভয় পক্ষই সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বিজ্ঞাপন

বুধবার ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, উভয় দেশের পারস্পরিক সম্পর্ককে আরো নিবিড় ও কার্যকর করার লক্ষ্যে উচ্চতর পর্যায়ে সফর বিনিময় এবং উভয় দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিষয়াদিসহ পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সহযোগিতাকে আরো সম্প্রসারণ করার ব্যাপারে তারা দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

বিশেষত দ্বিপাক্ষিক কূটনীতি, ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ, শিল্প, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, প্রতিরক্ষা ইত্যাদি ক্ষেত্রে সম্পর্কোন্নয়নে অগ্রাধিকার প্রদানে বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন। সভায় দু’দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত চুক্তিসমূহের যথাযথ বাস্তবায়ন ও প্রক্রিয়াধীন চুক্তিসমূহ দ্রুত স্বাক্ষরের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রকে আরও সম্প্রসারিত ও ব্যাপকতর করার লক্ষ্যে বিশদ আলোচনা হয়। বিশেষত বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি, তুরস্কে বাংলাদেশে তৈরি পোশাক (আরএমজি) আমদানি সহজীকরণ ইত্যাদি আলোচনায় প্রাধান্য পায়। মন্ত্রী পর্যায়ের ৫ম বাংলাদেশ-তুরস্ক যৌথ অর্থনৈতিক কমিশনের পরবর্তী সভা এ বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে বলে তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বাংলাদেশে আশ্রিত বাস্তচ্যূত রোহিঙ্গাদের জন্য তুরস্কের সহযোগিতার বিষয়টিও এ সভায় বিশেষ গুরুত্বের সাথে আলোচিত হয়। রোহিঙ্গাদের সাহায্যার্থে সকল ধরনের সহযোগিতার জন্য পররাষ্ট্র সচিব বাংলাদেশের পক্ষে তুরস্ক সরকারকে ধন্যবাদ জানান।

বৈঠকে বাস্তচ্যূত রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও দ্রুত প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশ ও তুরস্ক জাতিসংঘসহ সকল আন্তর্জাতিক ফোরামে একযোগে কাজ করবে মর্মে অঙ্গীকার ব্যক্ত করে।

বাংলাদেশ-তুরস্কের মধ্যে পররাষ্ট্র দপ্তরের সচিব পর্যায়ের পরবর্তী বৈঠক ২০২০ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে।