চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

টাইব্রেকারে দেয়াল গড়ে ফাইনালে বার্সা, অপেক্ষা রিয়ালের

নির্ধারিত সময়ের খেলা থাকল ড্র। অতিরিক্ত সময়েও মিলল না ফল। ম্যাচ গড়াল টাইব্রেকারে। পেনাল্টিতে তো অবশ্যই, তার আগে-পিছে দারুণ সব দেয়াল গড়ে বার্সেলোনাকে স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে নিলেন গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগেন।

কর্দোবায় বুধবার রাতে সুপার কাপের প্রথম সেমিফাইনালে রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ে খেলা ১-১ গোলে সমতায় থাকার পর টাইব্রেকারে ৩-২ ব্যবধানে জিতে শিরোপার মঞ্চে গেছে বার্সা।

বিজ্ঞাপন

এতে স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে ক্ল্যাসিকোর সম্ভাবনা জেগেছে। বৃহস্পতিবার রাতে দ্বিতীয় সেমিতে রিয়াল মাদ্রিদ যদি অ্যাথলেটিক বিলবাওকে হারাতে পারে, তাহলে ফাইনালে বার্সেলোনা-রিয়ালের ক্ল্যাসিকো দেখতে পারবেন ফুটবলপ্রেমীরা।

টাইব্রেকারে স্বাগতিকদের জন বাউতিস্তার শট ঠেকিয়ে শুরু করেন টের স্টেগেন। বার্সার প্রথম শটটিও আটকা পড়ে, লাগে পোস্টে। নিয়েছিলেন ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং। পরে সোসিয়েদাদের দ্বিতীয় ও তৃতীয় শট আটকা পড়ে জার্মান-প্রাচীর ও গোলবারে। মিকেল ওয়েরজাবালের শটে দেয়াল হয়ে দাঁড়ান বার্সা গোলরক্ষক। উইলিয়ান হোসের শট লাগে বারে।

এই ফাঁকে বার্সার দুটি গোল আদায় করে নেন উসমানে ডেম্বেলে ও মিরালেম পিয়ানিচ। কাতালানদের চতুর্থ শটটি অবশ্য আকাশে ওড়ে! নিয়েছিলেন অ্যান্টনিও গ্রিজম্যান। সোসিয়েদাদের চতুর্থ ও পঞ্চম শটে গোল তোলেন মিকেল মেরিনো ও আদনান ইয়ানুজাজ। ম্যাচ জমে ক্ষীর তখন!

সব নজর বার্সার শেষ শটে। তাতে রিকার্ড পুইগ সাফল্যের সাথে জালে বল জড়ালে আসে ৩-২ ব্যবধানের জয়।

ম্যাচে নির্ধারিত সময়ে লিওনেল মেসির অনুপস্থিতি স্পষ্ট ছিল। হালকা চোটে খেলানো হয়নি তাকে। সোসিয়েদাদের রক্ষণ ভাঙতে পারছিল না তার সতীর্থরা। স্বাগতিকদের কয়েকটি সুযোগ হাতছাড়া হওয়ার পর লাগাম টানতে শুরু করে বার্সেলোনা।

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণের শেষে ৩৯ মিনিটে ফল তোলে বার্সা। ব্র্যাথওয়েটের বানানো বল গ্রিজম্যানের পা ঘুরে যায় ডি ইয়ংয়ের কাছে। দলকে এগিয়ে নিতে ভুল করেননি তিনি।

মধ্যবিরতির পরপরই অবশ্য সেই হাসি ম্লান হয়। ৫১ মিনিটে স্পটকিকে সমতা টানেন সোসিয়েদাদের মিকেল। নিজ বক্সে প্রথম গোলের নায়ক ডি ইয়ংয়ের হাতে বল লাগলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

পরের সময়টুকুতে ডেম্বেলে, লেংলেরা সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি। বিপরীতে টের স্টেগেন হতাশ করতে থাকেন সোসিয়েদাদ আক্রমণভাগকে। অতিরিক্ত সময়ে গড়ানো ম্যাচে এমন আধডজন দুর্দান্ত সেভ করেছেন বার্সা গোলরক্ষক। আসে টাইব্রেকার সময়। সেখানেও নায়ক জার্মান গোলরক্ষক।