চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
Oikko

জিদানকে ফিরিয়েই রিয়ালের জোড়া টার্গেট

Oikko SME

মাত্র ১০ মাস আগে রিয়াল মাদ্রিদের দায়িত্ব ছেড়েছিলেন জিনেদিন জিদান। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদের বাজে ফর্ম আবার তাকে ফিরিয়ে এনেছে সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে।

Reneta June

গত রোববার রাতে বড় রোনান্ডোর মালিকানার ক্লাব রিয়াল ভ্যালাদোলিদের বিরুদ্ধে পিছিয়ে পড়েও ৪-১ জেতে রিয়াল। সেই ম্যাচে জোড়া গোলের নায়ক ম্যাচের পর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন বর্তমান কোচ সান্টিয়াগো সোলারির। বেনজেমা বলেছিলেন, ‘কী দরকার এই মুহূর্তে কোচ বদল করার!’

কিন্তু রিয়াল প্রেসিডেন্ট ফ্লোরেন্টিনো পেরেজ যে অন্যরকমই ভাবছিলেন। গত দুই সপ্তাহ ছিল রিয়ালের সবচেয়ে কলঙ্কের। কোপা ডেল রে থেকে বিদায়, লা লিগায় শিরোপার দৌড় থেকে ছিটকে যাওয়া, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটে পৌঁছাতে না পারা- সবকিছুই ঘটেছে মাত্র কয়েকদিনের ব্যবধানে। তাই রিয়াল সমর্থকদের খুশি করতে বড় কোনো পদক্ষেপ নিতেই হত পেরেজকে।

স্পেনের মিডিয়া মনে করছে, সেই মরিয়া মনোভাবেরই ফল জিদানকে আবার কোচ হিসেবে ফিরিয়ে আনা। শুরুতে নাম উঠেছিল হোসে মরিনহোরও।

বেনজেমা সোলারির হয়ে মুখ খুললেও রিয়ালের ডিফেন্ডার নাচোর মন্তব্য ছিল, ‘সোলারির সঙ্গে ফুটবলারদের সম্পর্ক খুব মসৃণ নয়।’

তারপরেই সোমবার স্পেনের প্রথমসারির মিডিয়াগুলোতে জিদানের নাম ভাসতে থাকে। রিয়ালের টানা তিনটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতার পেছনে বড় কৃতিত্ব ছিল জিদানের। তবে সেসময় তার দলে ছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। এবার নতুন চ্যালেঞ্জ।

চ্যালেঞ্জ হলেও আবার ‘ঘরে’ ফিরে তিনি খুশি। সেকথা নিজেই জানিয়েছেন জিদান। রোনালদোর বিদায়ের ঠিক আগেই ক্লাব ছেড়েছিলেন। প্রত্যাবর্তনের পর বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট আমাকে ফোন করেছিলেন, এ জন্যেই আমি এখানে। কারণ আমি তাকে (পেরেজ) এবং রিয়াল মাদ্রিদকে ভালোবাসি। রিয়ালের ডাকে আমি সাড়া না দিয়ে পারি না।’

তবে জিদান এসেছেন মানে, নিশ্চয়ই কোনো তারকা ফুটবলারকেও নিতে চলেছে রিয়াল। সেই প্রতিশ্রুতি না পেলে জিদান আসতেন না বলেই মনে করেন ফুটবল বিশ্লেষকর। সেই ইঙ্গিত দিয়েছেন ক্লাবের সভাপতি পেরেজও। আগামী মৌসুমে দল গঠনের জন্য ৩০ কোটি পাউন্ড ধার্য করেছে রিয়াল।

ফরাসি জিদানকে ফিরিয়ে রিয়াল সভাপতির চোখ সেই ফ্রান্সই। জোড়া টার্গেট করেছেন তিনি।

পিএসজি থেকে ফরাসি স্ট্রাইকার এমবাপেকে দলে নেয়ার ব্যাপারে বলেছেন, জিদান নিজে ফরাসি, তাই আশা করছি এমবাপেকে দলে নেয়ার ব্যাপারে তিনি সাহায্য করতে পারবেন।

পেরেজকে প্রশ্ন করা হয় নেইমার আর এমবাপের মধ্যে কাকে নিয়ে তারা বেশি আগ্রহী? উত্তরে তিনি বলেন, ‘দুজনকে নিয়েই।’

বোঝাই যাচ্ছে রোনালদোর বিদায়ের পর অনেকবেশি শক্তি নিয়েই শক্তিময় ফুটবলে ফিরে আসার লক্ষ্য রিয়াল মাদ্রিদের।

Oikko Uddokta